সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ০৯:২৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দৈনিক আলোকিত উখিয়ায় আপনাকে স্বাগতম

ইয়াবা সম্রাট কাল্লু বাহিনী ফের বেপরোয়া! প্রশাসনের নজরদারি জরুরি

  • সময় রবিবার, ১৩ জুন, ২০২১
  • ৩৮৪ বার পড়া হয়েছে

কক্সবাজার শহরে বিজিবি ক্যাম্প দক্ষিণ সাহিত্যিকা পল্লী যেন মাদকের আখড়ার স্বর্গরাজ্য পরিনতি হয়েছে,শুধুই মাদক নয় দিন দুপুরে মানুষ খুন করা যেন তার এক ধরনের নেশা,পাখি শিকারের মতো মানুষ খুন করতেও যেন কাঁপেনা তার হাত, এলাকা জুড়ে ত্র্যাসের রাজত্ব কায়েম করছে কাল্লু বাহিনী ও (কাল্লু) এমন এক চাঞ্চল্যকর’ ঘটনার জন্ম দিযেছেন শহরের শীর্ষ সন্ত্রাসী আশু বাহিনীর সহযোগী ইয়াবা সম্রাট হানিফ(আরোপে বাহিনীর কাল্লু)গত শনিবার ১২জুন দক্ষিণ সাহিত্যিকা পল্লী এলাকায় গৃহবধু জন্নাত আরার বসতঘরে জোরপূর্বক ঢুকে ইয়াবা সেবন করে মাদক পাচারকারী কাল্লু তার দলবল,এসময়ে তার বাড়িতে ইয়াবা সেবনে বাধা দেওয়ায় গৃহবধু জন্নাত আরাকে বেধড়ক মারধর করে এবং এবং তার স্বামী ছোট মিয়াকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন এসম ঘরের দরজা জানালা কুপিয়ে ভাংচুর করে যাওয়ার সময়ে এক লাখ টাকা চাঁদার দাবী করে,চাঁদা না ফেলে তার স্বামী ছোট মিয়াসহ তাকে প্রাণে মেরে খুন করে গুম করার হুমকি দে,মাদকাসক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী কাল্লু ও তার দলবল। স্থানীয়রা জানায়,এলাকার চিহ্নিত মাদকসেবী হানিফ(কাল্লু) প্রায়ই সাঙ্গোপাঙ্গদের নিয়ে জোরপূর্বক মানুষের ঘরে ঢুকে অথবা সড়কে মাদকের আসর বসায়। এ নিয়ে একাধিকবার ইয়াবা ব্যবসায়ী কাল্লুর সঙ্গে কথা-কাটাকাট হয়। প্রতিদিনের মতো ছোটমিয়া গত শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে টমটম চালিয়ে বাড়ি ফেরে দেখতে পাই কাল্লু ও তার দলবল মিলে তার ঘরে ইয়াবা সেবন করতে দেখেন। তখন কাল্লু ও তার দলবলকে সেখান থেকে চলে যেতে বলেন।এ নিয়ে কাল্লুর স-অস্ত্র বাহিনী সহযোগীদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে কাল্লু ক্ষিপ্ত হয়ে ছোটমিয়া ও স্ত্রীকে বুকে,তলপেটে, হাতে-পায়ে উপর্যপুরি আঘাত করে। পরে স্থানীয় লোকজনদের সহযোগিতার ছোটমিয়া ও তার স্ত্রী জান্নাত আরাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন খবর পেয়ে পুলিশ রাত ১২টার দিকে ঘটনাস্থলে গেলে ঘাতক শীর্ষ সন্ত্রাসী ইযাবা ব্যবসায়ী মাদকাসক্ত হানিফ(কাল্লু)ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী পালিয়ে যায়।এ বিষয়ে সদর মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ জানান এখনো কোন অভিযোগ পাইনি অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেব, ঘটনার বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানান ভুক্তভোগী।দেশব্যাপী মাদক বিরুধী অভিযান চলাকালে যে সকল মাদক কারবারি এলাকা ছাড়া হয়েছিল তারা সম্প্রতি কক্সবাজার প্রশাসনের গণ বদলি ও মাদক বিরুধী অভিযান শিথিল হওয়ার পর আবারও নিজ নিজ এলাকায় ফিয়ে দাপিয়ে মাদকের কারবার করেযাচ্ছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায় আশু বাহিনী ঘনিষ্ঠ সহচর হানিফ আরোপে মাদক সম্রাট কাল্লুর নামে কয়েকটি মাদকের মামলা রয়েছে। মামলা থাকার পরেও সে আইনশৃংখলা বাহিনী হাত থেকে অদৃশ্য ভাবে বেঁচে থাকে কি ভাবে এমন প্রশ্ন ঘোরপেঁচ সচেতন মহলের। আইনশৃংখলা বাহিনী মাদকের বিরুদ্ধে কড়াকড়ি অবস্থানের নেওয়ার পর ও থেমে নেই কাল্লুর ইয়াবা ব্যানিজ্য, ইয়াবা পাচারে তাকে সহযোগিতা করছে স্বয়ং তার স্ত্রী রেজভী, এলাকার তার বিরুদ্ধে সবাই নিরবতা কেন? ঘরে বসে খুচরা ইযাবা বিক্রি হার্ট, বানিয়েছেন তার স্ত্রী রেজভী ওতার নিজস্ব বাহিনীর মাধ্যমে তার ইয়াবার সাম্রাজ্য চালিয়ে যাওয়ার পর ও সমাজ কর্তারা নিরব ভূমিকার আচরণ কারণ কি?এমন প্রশ্ন সংশ্লিষ্ট মহলের। এই বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যাক্তী বলেন তাদের নেই কোনো চাকরি, নেই কোনো দৃশ্যমান ব্যবসা বাপের তেমন কোনো সহায় সম্পত্তি ও নেই তবে কিভাবে তারা জীবন যাপন করে? আমি আমার এলাকার কয়েকজন সচেতন লোকদের নিয়ে মাদক বিরোধী অবস্থান নেওয়াতে তাদের পরিবারের মহিলাকে দিয়ে মিথ্যে নারী নির্যাতন মামলা দিয়ে হয়রানি করার হুমকি দেন,এমন কি কৌশলে লোকজনদের ধরে এনে স্থানীয়দের নজর এড়াতে পাওনাদার বলে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে মোটা অংকের টাকা মুক্তিপন আদায়ের ও ঘটনা অহরহ বলে জানান।বিস্তারিত পরের প্রতিবেদনে জানতে চোঁখ রাখুন।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: