শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দৈনিক আলোকিত উখিয়ায় আপনাকে স্বাগতম

শহরের ৯নং ওয়ার্ডের মাদক চোরাকারবারি ও ছিনতাইকারী শাকিল প্রশাসনের ধরাছোঁয়ার বাইরে

  • সময় শনিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৫৪ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক:
শহরের বাদশাঘোনা এলাকায় পাহাড়ের ঝুপড়িতে বসবাস, কাজ করতো কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে ক্যামরাম্যান হিসেবে। গত কয়েক বছর আগেও যে পরিবারে নুন আনতে পান্তা ফুরানোর অবস্থা ছিল, বছর ব্যবধানে সেই ক্যামরাম্যানের পাল্টেছে কর্ম; বেশভূষায় এসেছে আভিজাত্য। কক্সবাজার পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের বাদশাঘোনা এলাকার নূরুল ইসলামের ছেলে মোহাম্মদ শাকিল (২০)। শাকিলকে দেখলে চেনার উপায় নেই, বছর দুয়েক আগে জরাজীর্ণ পোশাকের সেই ক্যামরাম্যানকে। সমুদ্র সৈকতসহ আশপাশের এলাকায় ছিনতাই আর মাদক ব্যবসায় ভাগ্যবদল তার। অভিযোগ উঠেছে শহরের চিহ্নিত মাদকচোরাকারবারি ও ছিনতাইকারী সে। শাকিলের মা সেও একজন চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী। মা ছেলে ইয়াবার চালনসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হয়েছে বেশ কয়েকবার, মামলাও চলমান। বেশ কয়েকবার পুলিশ তাদের আটক করলেও থেমে নেই মা ছেলের মাদক কারবার। এলাকর উড়তি তরুণদের হাতে তুলে দিচ্ছে মরণ নেশা ইয়াবা। এতে উদ্বেগ উৎকন্ঠায় রয়েছে শহরের বাদশাঘোনার ৯নং ওয়ার্ড এলাকাবাসী। স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, শাকিল ইয়াবার বড় বড় চালান নিয়ে নিয়মিত যাতায়াত করে ঢাকা-চট্টগ্রামে, আর এতে তাকে সহায়তা করে আসছে তারই মা। আরো জানাযায়, তার মাকে পুলিশ ২০০ পিচ ইয়াবাসহ আটক করেছিলো এবং আটকের পর জেলা পুলিশ তার মাকে হাজতে প্রেরণ করে। এর চারদিনের মাথায় কোর্টে আত্মসমর্পণ করে ছেলে শাকিল। শাকিলের সাথে যোগাযোগ করা হলে সে বলেন, আমার আর্থিক অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে, তাই এলাকার কিছু কুচক্রী মহল আমি এবং আমার মায়ের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে। এবিষয়ে কক্সবাজার সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তদন্ত জানান, শহরের মাদক চোরাকারবারি ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে। শহরের চিহ্নিত মাদক কারবারিদের আইনের আওতায় আনা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: