শুক্রবার, ০৬ অগাস্ট ২০২১, ০৮:৫২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দৈনিক আলোকিত উখিয়ায় আপনাকে স্বাগতম

চকরিয়ায় বসতঘরে অগ্নিসংযোগ করে জবর দখলের চেষ্টা ভাংচুর ও লুটপাট

  • সময় সোমবার, ১ মার্চ, ২০২১
  • ১০৯ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
চকরিয়ায় প্রকাশ্যে দিবালোকে ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে এলাকায় ভয়ভীতি সৃষ্টির মাধ্যমে বসতভিটার জায়গা দখলের চেষ্টায় অগ্নিসংযোগ করে বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। এসময় জবর দখলকারী সন্ত্রাসীদের বাঁধা দিতে গেলে রিমন আক্তার (১৯) নামের এক যুবতী কন্যাকে হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করা হয়।
এ ঘটনায় বসতভিটার মালিক বাদী হয়ে তিনজনের নাম উল্লেখ করে আরো ৬০ জনকে অজ্ঞাতনামা দেখিয়ে বৃহস্পতিবার রাতে চকরিয়া থানায় এজাহার দায়ের করেছে।
চকরিয়া পৌরসভার ৯নম্বর ওয়ার্ডস্থ পূর্ব নিজপানখালী এলাকায় বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে।
ঘটনায় আহত যুবতী রিমন আক্তার চকরিয়া পৌরসভার নিজপানখালী এলাকার সাহাব উদ্দিনের কন্যা।
অভিযোগে জানাগেছে, চকরিয়া পৌরসভার ৯নম্বর ওয়ার্ডস্থ পূর্ব নিজপানখালী এলাকার আবদুল মাবুদের ছেলে আরিফুর রহমান কাজল গত ৩ফেব্রুয়ারী ২০২০ইং তারিখে ৪৯৫ নম্বর রেজিষ্ট্রিযুক্ত কবলামূলে পৌরসভার নিজপানখালী মৌজার বিএস ৯২ ও ৫৯ নম্বর খতিয়ানের বিএস দাগ নং ২১৫ এবং ২০৯ দাগের ৮শতক বসতভিটার জায়গা ক্রয় করেন। জায়গা ক্রয় করার পরে
তিনি দখল পূর্বক টিনের ছাউনিযুক্ত দুই রুম বিশিষ্ট টিনশেড বসতঘর নির্মাণ করে ভোগ দখল করে আসিতেছে। তার ভোগদখলীয় বসতঘরের জায়গায় খালাতো বোন জাহানারা বেগম পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করে আসছে। বর্ণিত তফসিলের বসতভিটার জায়গা বিক্রির পর নিজপানখালী এলাকার জামাল উদ্দিনের ছেলে নজরুল ইসলাম, তার ছেলে নকিবুল ইসলাম ও নাজমুল হাসান স্বাধীনসহ অপরাপর আত্মীয় এবং বহিরাগত স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী নিয়ে জায়গা জবর দখলের প্রচেষ্টা চালিয়ে আসছে। এ বিষয়ে স্থানীয় ভাবে সালিশ বিচার হলে অভিযুক্তরা সালিশ বিচার অমান্য করে দীর্ঘদিন ধরে হাকাবকা করতে থাকেন। এরই জের ধরে বুধবার দুপুরে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে অজ্ঞাতনামা ৩০/৩৫ জন স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা ওই বসতভিটা দখলের চেষ্টায় অগ্নিসংযোগ করে তান্ডব চালিয়ে ঘর ভাংচুর করে লুটপাট চালানো হয়। এসময় বাধা দিতে গেলে রিমন আক্তার (১৯) আঘাত করে গুরুতর জখম করেন। ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে চকরিয়া সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বসতঘর ভাংচুরের খবর পেয়ে চকরিয়া থানা পুলিশের এস আই জিয়া উদ্দিন ও এস আই মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌছলে জবর দখলকারী সন্ত্রাসীরা দ্রুত পালিয়ে যায়।
ভুক্তভোগী বসতভিটার জায়গার মালিক আরিফুল ইসলাম কাজল জানান, জায়গার বিরোধের জের ধরে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে বুধবার দুপুরে অজ্ঞাতনামা ৩০/৩৫ জন স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী নিয়ে নিজপানখালী এলাকার নজরুল ইসলাম, তার ছেলে নকিবুল ইসলাম ও নাজমুল হাসান স্বাধীনসহ দখলীয় বসতভিটার জায়গা জবর দখলের উদ্দেশ্যে অভিযুক্তরা প্রকাশ্যে দিবালোকে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ৭/৮ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে এলাকায় ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। ওইসময় আমি ও আমার খালাতো বোন জাহানারা বেগম জবর দখল কাজে বাঁধা দিতে গেলে অভিযুক্তরা খুন করিবে মর্মে হুমকি দিয়ে আমাদের দাওয়া করেন। এমনকি আমার বাড়িতে বেডাতে আসা খালাতো বোনের মেয়ে রিমন আক্তার জবর দখলকারী সন্ত্রাসীকে বাঁধা দিতে চাইলে তাকেও সন্ত্রাসীরা স্বজোরে আঘাত করে গুরুতর জখম করে। এসময় অজ্ঞাত ও অভিযুক্ত ব্যক্তি বসতভিটায় অনুপ্রবেশ করে টিনশেড ঘরের চতুর পার্শ্বে আগুন লাগিয়ে দিয়ে বসতঘরে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট চালায়।
তিনি আরও বলেন, আমার বসতঘরে থাকা ব্যবহৃত সম্পূর্ণ আসবাবপত্র ভাংচুর ও লুট করে নিয়ে যায় জবর দখলকারীরা। ঘরের চতুর পার্শ্বের টিনের ঘেরা-বেড়া ও টিনশেড বসতঘরটি সম্পূর্ণ পুড়িয়ে দেয়ায় এতে প্রায় ৭লক্ষাধিক টাকার মতো ক্ষতি সাধন হয়েছে। ঘটনার পর অভিযুক্ত আসামীরা নানা ধরণের হুমকি-দমকি প্রদান করে। এছাড়াও ঘটনা নিয়ে কোন মামলা করলে আমাকে খুন করা হবে বলে হুমকি দেন তারা।
ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাওয়া চকরিয়া থানার উপপরিদর্শক (এস আই) জিয়া উদ্দিন বলেন, ঘটনার সময় থানার দায়িত্বরত থাকায় পৌরসভাস্থ পূর্ব নিজপানখালী এলাকার একটি বসতঘর ভাংচুর করার সংবাদ পেয়ে সঙ্গীয় পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থল গিয়ে পরিদর্শন করেছি। বিষয়টি যা দেখলাম তা খুবই নিন্দনীয় ও জগন্য একটি ঘটনা। যখন ঘটনাস্থলে পৌছি তখন টিনশেড একটি ঘরের ভেতরে আগুন জ্বলতে দেখে স্থানীয়দের সহায়তায় দ্রুত পানি ও বালি দিয়ে আগুন নিভিয়ে নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।
তিনি বলেন, বসতঘর ও টিনের ঘেরা ভাংচুর করার বিষয়টি সঠিক। তবে স্থানীয়দের ভাষ্যমতে যারা দখলের চেষ্টা চালাতে আসছিল তারা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছার পূর্বেই নাকি পালিয়ে যায়। আমরা যাওয়ার পরে কোন দখলকারীকে ঘটনায় দেখতে পাইনি।
এ ব্যাপারে চকরিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ আশরাফুর রহমান কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ ধরণের কোন ঘটনার বিষয়ে এখনো কেউ থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: