সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১১:১৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দৈনিক আলোকিত উখিয়ায় আপনাকে স্বাগতম

দেশে-বিদেশে অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র চলছে: প্রধানমন্ত্রী

  • সময় মঙ্গলবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১০৪ বার পড়া হয়েছে

দেশে-বিদেশে নানা অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র চলছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শত্রুর মুখে ছাই দিয়ে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।
২ ফেব্রুয়ারি সকালে একাদশ জাতীয় সংসদের একাদশতম অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে সংসদ নেতা বলেন, সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছে তার সরকার। অধিবেশনের সমাপ্তি সূচক আয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে উঠে এসেছে, করোনা পরিস্থিতি, রাজনৈতিক সংকট ও অর্থনৈতিক বাস্তবতা।
শেষ হলো জাতীয় একাদশ জাতীয় সংসদের শীতকালীন অধিবেশন। করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও স্বাস্থ্য সতর্কতা ও সাবধানতা অবলম্বন করে পরিচালিত এ সংসদে পাস হয়েছে ৬টি আইন। পাশাপাশি টানা সাধারণ আলোচনা চলেছে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর।বিধি অনুযায়ী ২ ফেব্রুয়ারি সকালে স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ অধিবেশনে সমাপনী বক্তব্য দেন সংসদ নেতা শেখ হাসিনা।
অধিবেশনের সমাপনী দিনে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে উঠে আসে রাজনৈতিক ইস্যু। তিনি বলেন, বহুদলীয় গণতন্ত্রে কালো অধ্যায় বিএনপি প্রতিষ্ঠা করে। আজকে বিএনপির নেতৃত্বের অভাব। পলাতক আসামি যখন একটা দলের নেতা। তাদের ওপর সাধারণ মানুষের আস্থা থাকে না।
করোনা মহামারির আঘাত সামলে, অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়িয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, সময় হলেই খুলে দেওয়া হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।
তিনি বলেন, করোনা এখন অনেক নিয়ন্ত্রণে। আরেকটু নিয়ন্ত্রণে আসলে স্কুল কলেজ খুলে দেওয়া হবে। তখন ছেলে-মেয়েরা পড়াশুনা করতে পারবে। ভ্যাকসিন নিয়ে অনেক কথা। অনেক ব্যঙ্গ। ভ্যাকসিন আসায় সেই নিজেই উত্তর দিয়েছেন।দেশের উন্নয়ন কর্মকা-ে বিএনপির কোনো সাড়া না পাওয়ায় ক্ষোভ জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র চলছে নানা ব্যঞ্জনায়।
তিনি বলেন, মিথ্য তথ্য দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করা বিএনপির জন্মগত চরিত্র। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। শত্রুর মুখে চাই দিয়ে এগিয়ে যাবে। দেশে ও বিদেশে নানাভাবে অপ্রচার চলছে। আমি বিশ্বাস করি, সততা নিয়ে কাজ করলে সেই কাজের সুফল জনগন পেলে সেখানেই আমাদের প্রশান্তি।
ভ্যাকসিন নিয়ে দেশে ব্যঙ্গ হলেও বাংলাদেশ করোনা নিয়ন্ত্রণের প্রশংসা বিশ্ব দরবারে অর্জন করেছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরো বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) বিশ্ব থেকে চলে না যাবে ততদিন পর্যন্ত সবাইকে মাস্ক পরে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন। যারা করোনার ভ্যাকসিন নেবেন তাদেরও তিনি মাস্ক পরে চলতে বলেছেন।সমাপনী ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, করোনা ভাইরাস এখন অনেকটা নিয়ন্ত্রণে। আরও কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলে শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান খুলে দিলে ছেলে-মেয়েরা লেখাপড়া করতে পারবে।
করোনা ভ্যাকসিনের যখন গবেষণা শুরু হয় তখনই আমি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছিলাম কারা কারা গবেষণা করছে আগে থেকে ঠিক করে রাখা হয়েছে।  ভ্যাকসিন বাজারে এলেই আমরা ক্রয় করবো। এর জন্য আমরা এক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়ে রাখি। যখনই বাজারে আসে তখনই ক্রয় করি। করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে অনেকে কথা বলেছিলেন। আসলে ভ্যাকসিন এসে নিজেই তার উত্তর দিয়েছে। অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকার তিন কোটি ডোজ ভ্যাকসিন আমরা ক্রয় করেছি। এই ভ্যাকসিন নেওয়ার পর খারাপ কোনো রিঅ্যাকশনের কথা শোনা যায়নি। তারপরও আমরা মনিটর করছি। আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে সারাদেশে সবাইকে ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হবে। এ নিয়ে দেশে প্রশংসা শুনিনি। কিন্তু জাতিসংঘের মহাসচিব প্রশংসা করেছেন।
তিনি আরও বলেন, প্রথম কারা করোনা ভ্যাকসিন পাবেন সেটাও আমরা ঠিক করে ফেলেছি। করোনার ভ্যাকসিন যারা নিচ্ছেন তাদের এখনও মাস্ক পরে থাকতে হবে, সবসময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। যতক্ষণ পর্যন্ত বিশ্ব থেকে করোনা ভাইরাস না যায় ততক্ষণ পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: