সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৪:১৩ অপরাহ্ন

সাফল্যের স্বপ্ন দেখছে বাকেরগঞ্জের বেকার যুবকরা

  • সময় বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৩০৬ বার পড়া হয়েছে

মহিবুল ইসলাম সৌরভ::

ইচ্ছা শক্তি, সাহস আর উদ্যোগী মনোভাব থাকলে অন্যের ভাগ্যের পরিবর্তন নিজেই করা যায়। তার উজ্জল প্রমাণ করেছে বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার নুরজাহান ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক মোঃ সাজ্জাদ হোসেন রানা। তিনি ব্যবসী জীবনের পাশাপাশি নিজ এলাকায় নিজেরাই কর্মসংস্থান তৈরি করে বেকার যুবকদের ভাগ্যের চাকা পরিবর্তন করে সাফল্যের স্বপ্ন দেখছেন।

তিনি দীর্ঘদিন যাবত নিজ গ্রামের বাড়ি, মাতৃভূমি বাকেরগঞ্জ কে নিয়ে সুন্দর ভেবেছেন। তিনি বেকার যুবকদের কথা চিন্তা করে এই উদ্যোগ নিয়ে উৎসাহিত হয়ে ডেইরি ফার্ম গড়ে তুলছেন। তাদের বিভিন্ন ধরনের উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে কলা বাগান, আম বাগান, লেবু বাগান, পেয়ারা বাগান, হাঁসের খামার, গরু খামার, ছাগলের খামার, স্থানীয় জাতের মুরগি, টার্কি মুরগি সহ মুরগি পালন, মোবাইল সার্ভিসিংসহ আরও অনেক কিছু।

এই উদ্যোগগুলোর পাশাপাশি যুবকরা গড়ে তুলবেন বিভিন্ন যুব সংগঠন। তাদের এই উদ্যোগের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে নানাভাবে তাদের সহযোগিতা ও উৎসাহ দিয়ে আসছে মোঃ সাজ্জাদ হোসেন রানা। যুবকদের প্রশিক্ষণ, অভিজ্ঞতা বিনিময় সফর, আলোচনা সভা মতবিনিময় সভা আয়োজনের মাধ্যমে উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করে আসছেন। এছাড়াও সরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান যেমন যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর, সমাজসেবা অফিস, আনসার ভিডিপি অফিস, কৃষি অফিস, সমবায় অফিসসহ প্রতিষ্ঠানের সাথেও তাদের যোগাযোগ করিয়ে দেওয়া এবং যুক্ত করার কাজ করে আসছে তিনি। যুবকরা সেসব সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে যুগোপযোগী ও প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ করতে পারবেন। সব বিষয়ে তারা প্রশিক্ষণ নিবেন সেটা হলো গবাদি পশু পালন, হাঁসমুরগি পালন ও প্রাথমিক চিকিৎসা, নারীদের সেলাই প্রশিক্ষণ, কম্পিউটার প্রশিক্ষণ, নার্সারি তৈরি, মৎস্যচাষসহ নানান ধরনের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরু করবেন।

এই প্রসঙ্গে মোঃ সাজ্জাদ হোসেন রানা বলেন, আমি বিষয়টি নিয়ে বিবেচনা করে দেখেছি এবং বুঝেছি। তাই আমি প্রথমে মৎস্য চাষের উদ্যোগ নেই এবং তাতে প্রায় লাভবান হয়েছি। এই ব্যাপারে যদি স্থানীয় বেকার যুবকদের উদ্যোগ থাকে তাহলে আমি পরবর্তী উদ্যোগ নিতে আগ্রহী। যুবকরা নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করার পাশাপাশি সামাজিক বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করে যাচ্ছে। বাল্য বিবাহ রোধে জনসচেতনতা তৈরি, ঝরে পড়া, পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে স্কুল কার্যক্রম, মাদকরোধে ক্যাম্পইন, বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি, দুর্যোগ মোকাবেলায় সচেতনতা তৈরি, পাখি রক্ষা, খেলাধুলাসহ নানান বিষয়ে তারা কাজ করে যাচ্ছে। এই বিষয়টাকে আমি অবশ্যই মহৎ উদ্যোগ বলবো। যেটা আমার নজর কেড়েছে এবং আমি এর পরিপ্রেক্ষিতেই এই উদ্যোগ নিয়েছি।

এই বিষয়ে যদি আমাকে স্থানীয় জনগন, সাধারন মানুষ, উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও মান্যগণ্য ব্যক্তিরা সু-পরামর্শমূলক সাহায্য সহযোগিতা ও উৎসাহ দেয়। তাহলে আমি এবং আমার এই কাজে আরও অগ্রগতি দেখাতে সক্ষম হব।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: