সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৪:০৫ অপরাহ্ন

জামাইয়ের হাতে ছুরিকাঘাতে শশুর নিশংস ভাবে খুন ,শাশুড়ি আশঙ্কাজনক

  • সময় মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২১৩ বার পড়া হয়েছে

জিয়াউল হক জিয়া::
কক্সবাজার সদর ভারুয়াখালী ইউনিয়নের মশারফ পাড়া গ্রামে জামাইয়ের হাতে ছুরিকাঘাতে শশুর নিশংস ভাবে খুন হয়েছে এবং শ্বাশুড়িকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতলে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটে ২২ সেপ্টেম্বর রাত ১.৩০ মিঃ।
সরোজমিনে ঘটনাস্থল থেকে জানা যায়, ছুরিকাঘাতে নিহতের নাম নুর কবির। নুর কবিরের মেয়ে জেরিন আক্তার বানিয়াপাড়া আমির হোসেন ছেলে প্রবাসী মিজানুর রহমানের সাথে দুই বছর পূর্বে বিয়ে হয়। বিয়ের পর স্বর্ণ বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া হয়। উক্ত ঝগড়াকে কেন্দ্র করে জেরিন বাপের বাড়িতে চলে যায়। জেরিন বিগত ছয় মাস ধরে বাপের বাড়িতে ছিল। বাপের বাড়িতে থাকার কারণবশত চেয়ারম্যানের কাছে বিচারাধীন বলেও জানা যায়। দফায় দফায় বিচারের জন্য কয়েকবার বৈঠকও হয়েছে। বিগত ১৫/২০ দিন ধরে ঘাতক মিজান শ্বশুরবাড়ির সকলকে হুমকি-ধমকি দিয়ে যাচ্ছে।গেল রাত আনুমানিক আনুমানিক রাত ১:৩০ মিনিটে মিজান তার শ্বশুরবাড়ির রান্নাঘরের দরজা ভেঙ্গে ঢুকে স্ত্রী জেরিনের রুমের মধ্যে ঢুকে পড়ে জেরিন ঘুম থেকে জাগ্রত হয়ে চিৎকার করলে জেরিনের মা-বাবা উঠে দেখতে পাই জেরিনের রুমের দরজা বন্ধ এবং রুমের ভীতর চিৎকার করছে। মা-বাবা দরজা ধাক্কাধাক্কি করে দরজা ভেঙ্গে রুমের মধ্যে ঢুকে পড়লে মিজান ধারালো ছুরি দিয়ে পরপর প্রথম শাশুড়ি নুরজাহানকে এরপর শ্বশুর নুর কবিরকে ছুরি দিয়ে আঘাত করে। তখন দুজন ঘটনাস্থলে পড়ে যায়। মিজান তার বউ বা জেরিনকে ছুরি দিয়ে আঘাত করতে চাইলে সে চিৎকার করলে স্থানীয় পার্শ্ববর্তী লোকজন এগিয়ে আসে তখন ঘাতক মিজান পালিয়ে যাই। এলাকাবাসী এসে আহতদের উদ্ধার করে রাত ২টার দিকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে নুর কবিরকে মৃত ঘোষণা করে এবং নুরজাহানকে গুরুতর অবস্থায় ভর্তি করা হয়। সকাল দশটার দিকে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে রেফার করা হয়। ঘটনা স্থানে সকাল ৯টা দিকে ঈদগাহ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ এসআই মহিউদ্দিন ও এস আই দীপঙ্কর সহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সত্যতা উদঘাটন করতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তদন্ত কালে নিহত লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ মর্গে রয়েছে। ঈদগাহ তদন্ত কেন্দ্রের দায়িত্বরত আইসিয মহোদয় ঘটনা নিশ্চিত করেন এবং ঘটনাস্থলে পুলিশের সাথে ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম মেম্বার সহযোগিতা করে যাচ্ছে। পুলিশ ঘাতক খুনি মিজান কে ধরতে তৎপরতা চালাচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: