সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০২০, ১০:৫৬ অপরাহ্ন

সৌভাগ্যবান সেই ব্যক্তি,

  • সময় সোমবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৬২ বার পড়া হয়েছে

মাওঃ হাফেজ শরীফুল ইসলাম::
যে দুনিয়াতে নেককার সন্তানরেখে যেতে পেরেছে। রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, জান্নাতে কোনো কোনো ব্যক্তির মর্যাদা বৃদ্ধি করা হবে। তখন সে বলবে, কীভাবে আমার মর্যাদা বৃদ্ধি পেলো? তখন তাকে বলা হবে, তোমার সন্তান তোমার জন্য আল্লাহর নিকট ইস্তিগফার (ক্ষমা প্রার্থনা) করেছে, তাই। [ইবনু মাজাহ, আস-সুনান ২/১২০৭, আলবানি, সিলসিলা সহিহাহ, ৪/১৭২ হাদিসটি সহিহ] অন্য হাদিসে এসেছে, যখন মানুষ মৃত্যুবরণ করে, তখন তার সব আমল বন্ধ হয়ে যায়, কেবল তিনটি ব্যতীত, (১) সদাকাহ্ জারিয়াহ (এমন দান, যা চলমান থাকে)! (২) এমন জ্ঞান, যা উপকৃত করে এবং (৩) নেককার সন্তান, যে তার জন্য দু‘আ করে। [মুসলিম, আস-সহিহ ৩/১২৫৫] আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে আমরা কি আমাদের মৃত বাবা-মার জন্য সুসংবাদ পৌঁছাবো নাকি আফসোস পৌঁছাবো। প্রিয় ভাই-বোনেরা! আমাদের বাবা-মা, আত্মীয়-স্বজন আমাদের কাছ থেকে একটু দু‘আ পাওয়ার জন্য অসহায়ের মত অপেক্ষমাণ থাকেন। এত কষ্ট করে তাঁরা আমাদের বড় করলেন, তাঁদের জন্য কি আমাদের একটুও মায়া হয় না? মরে যাওয়ার পরপরই কীভাবে আমরা তাঁদের ভুলে যাই? আপনার আন্তরিক দু‘আর মধ্যে তাদেরকে কখনো ভুলবেন না। আপনার দু‘আর মাধ্যমে তাঁরা ভীষণ আনন্দিত হোন। যদি সম্ভব হয়, প্রতি মাসেই তাদের মাগফিরাতের উদ্দেশ্যে কিছু দান-সাদাকাহ্ করুন। এগুলোর নেকি তাঁরা পাবেন, পেয়ে আনন্দিত হবেন। মাঝেমধ্যে তাঁদের কবর যিয়ারত করে আসুন। অনেক স্মৃতি এসে মানসপটে ভীড় করবে। তাঁদের দুনিয়ার জীবনটা চোখের সামনে এসে দৃশ্যমান হবে। আপনার ভেতরেও এই অনুভূতিটা প্রবলভাবে নাড়া দেবে যে, তাদের মত আপনাকেও একদিন এই নির্জন অন্ধকার গর্তের বাসিন্দা হতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: