শুক্রবার, ০২ অক্টোবর ২০২০, ০২:১০ পূর্বাহ্ন

কক্সবাজার আদালতে ১০ বছরের অধিক সময় ধরে আইনজীবী পরিচয়ে প্রতারণা

  • সময় মঙ্গলবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৭০ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মঈন উদ্দিন নামের এই ব্যক্তির বিরুদ্ধে প্রতারণা ও ভুয়া আইনজীবীর অভিযোগ ওঠে।
জানা যায়, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের এনরোল্ডমেন্ট না হয়ে ককসবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে প্রায় ১০ বছরের অধিক সময়ে নিজেকে আইনজীবি পরিচয় দিয়ে শত শত নিরীহ লোকদের কাছ থেকে বিভিন্ন অপকৌশলে টাকা হাতিয়ে নেয়া ছিল তার কাজ।
কিন্তু কথায় আছে, চোর আর কতদিন ধরা পড়বেনা? আজ ৮ সেপ্টেম্বর, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১ টায় ককসবাজার জেলা আইনজীবি সমিতির ভিজিলেন্স টিমের নেতৃত্বে জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয়ের পরিচালনায় এই প্রতারকের মসজিদ মার্কেটের ৩য় তলার ২০ নং চেম্বার থেকে তার জালিয়তির প্রমাণ হিসেবে ককসবাজার জেলা কারাগারের ডেপুটি জেলারের নামাংকিত নকল সীল মোহর, ককসবাজারের প্রতিটি ইউনিয়ন (খুরুশকুল সহ) পরিষদের চেয়ারম্যানের সীল, রেকর্ডরুমের সীল এবং আদালতের সীল জব্দ পুর্বক ভ্রাম্যমাণ আদালত টিম তাকে ০৬ মাসের সাজা দিয়েছেন।
উল্লেখ্য, প্রতারক ও ভুয়া আইনজীবী মঈন উদ্দিনের গ্রামের বাড়ী ককসবাজার সদর উপজেলার খুরুশস্কুল ইউনিয়নে।
কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির ভিজিল্যান্স টিম ও টাউট দালাল নির্মুল কমিটির সদস্য অ্যাড. মো. ফয়সাল বলেন, প্রতারক মইন উদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে আদালত এলাকায় প্রতারণা করে যাচ্ছেন। জেলা ও দায়রা জজ, নকল খানার প্রধান, জেল সুপার, ডিসিসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মানুষের সীল মোহর ও স্বাক্ষর নকল করেন তিনি।
এমনকি জেলা ও দায়রা জজের সীল-স্বাক্ষর নকল করে ভূয়া ডকুমেন্ট তৈরী করে হাইকোর্ট থেকে আসামীর জামিন নিয়েছে বলে আমাদের কাছে তথ্য রয়েছে। ভূয়া জামিন কপি দিয়ে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণাও করেছে। জামিন ফর্মে ভূয়া সাইন দেওয়াসহ বিভিন্ন ধরণের প্রতারণা করে আসছিলেন তিনি।
তিনি আরও বলেন, মইন নিজেকে আইনজীবী পরিচয় দিত। কিন্তু তিনি আইনজীবী বা আইনজীবী সহকারী কোনটাই নয়। সম্প্রতি তার প্রতারণার বিষয়টি আমাদের নজরে আসে। বিষয়টি জেলা প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অবহিত করলে মঙ্গলবার ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করে। মইনের মত টাউটদের আইনের আওতায় আনতে আইনজীবী সমিতি কাজ করে যাচ্ছে বলে জানান তিনি।
এই ভুয়া আইনজীবী ধরার খবর শুনলে কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির অনেক আইনজীবী জানান,
ভ্রাম্যমাণ আদালতের সাজার পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে যেন বিজ্ঞ আদালতের পক্ষ থেকে একটি প্রতারণার মামলা রুজু করার যোক্তিক দাবী জানাই।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: