সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১০:৪২ পূর্বাহ্ন

জেল থেকে ফিরেই ফের বেপরোয়া লিংক রোডের আনার কলি

  • সময় সোমবার, ১৭ আগস্ট, ২০২০
  • ২৬৬ বার পড়া হয়েছে

চীফ ক্রাইম রিপোর্টার:

কক্সবাজার ঝিলংজা ইউনিয়নের বিসিক এলাকার ইয়াবা সুন্দরী নামেখ্যাত আনারকলি (২৩) জেল থেকে ফিরেই ফের ইয়াবা বাণিজ্যে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। সে গত ২৩শে জুন ২০১৯ইং তারিখে ঢাকায় অভিনব কায়দায় ইয়াবা পাচারকালে দুলাজারা মালুমঘাট হাইওয়ে পুলিশের তল্লাশি চৌকিতে ২ হাজার পাঁচ শত পিচ ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার হয়ে সাত মাস জেল খেটে বের হয়ে আবার নতুনভাবে ইয়াবা বাণিজ্যে বেপরোয়া হয়ে উঠে।

মাদকের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এত কঠোরতার পরও থেমে নেই ছোট-বড় মাদক কারবারীদের ইয়াবা বাণিজ্য। প্রতিদিন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে পাচারকারীরা নিত্য নতুন কৌশল অবলম্বন করে কোন না কোন উপায়ে পাচার করছে লক্ষ লক্ষ ইয়াবা।

ইয়াবা সুন্দরী আনারকলির বিশস্ত কয়েকজনের সাথে আলাপ করে জানা যায়, কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ইয়াবা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ইয়াবা নিয়ে অতি কৌশলে লোকাল গাড়ি ব্যবহার করে তল্লাশি চৌকির আগে গাড়ি থেকে নেমে যায় এরপর পায়ে হেঁটে কিছুদূর গিয়ে আবার একটি গাড়ি নিয়ে তার লিংক রোড ভাড়া বাসায় এসে অবস্থান নেয়। পরে সুযোগ বুঝে আবার লোকাল বাস, মাহিন্দ্রা, মাইক্রোবাস, ছোট ছোট যানবাহন ব্যবহার করে চালান পৌঁছে দিচ্ছে গন্তব্যস্থান গাজীপুরে। সেখানে রয়েছে তার বয়ফ্রেন্ড, সে ইয়াবা রিসিভ করে নিয়ে পার্টির সাথে লেনদেন করে টাকা বুঝে দেয়।

সরকার মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করায় গ্রেফতার হচ্ছে শতশত মাদক ব্যবসায়ী এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হচ্ছে অসংখ্য মাদক কারবারি এরপরও বিভিন্ন কৌশলে ঠিকই ঢাকার প্রাণকেন্দ্রে পৌঁছে যাচ্ছে মরণব্যাধি নেশা ইয়াবা।

সূত্রে জানা গেছে, ইয়াবা সুন্দরী আনারকলির এক ইয়াবা পাচারকারী আব্দুল মান্নান কিছু দিন আগে চট্টগ্রামে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার হয়। সে বর্তমানে চট্টগ্রাম কারাগারে রয়েছে। আনারকলির মা-বোন ও দুই ভাই এই মরণনেশা ইয়াবা ব্যবসার সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত রয়েছে। বর্তমানেও তার দুই ভাই ইয়াবা নিয়ে গ্রেপ্তার হয়ে, একজন চট্টগ্রাম কারাগারে অন্যজন ঢাকা কারাগারে রয়েছে।

প্রতিবেশী সূত্রে জানা গেছে, তার দুই তিন জায়গায় ভাড়া রয়েছে, কোন সময় কোন জায়গায় থাকে বলা যায় না। তবে নিজ বাড়ি লিংক রোডের হস্বোভা কাঁটায় হলেও সে মুহুরী পাড়া প্রাইমারি স্কুলের পার্শে (আব্দুল ওদুদ) প্রকাশ হ্যাটম্যান এর ভাড়া বাড়িতে থেকে দীর্ঘদিন ধরে এই মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছে বলে জানা যায়।

এ বিষয়ে জানতে তার সাথে মোঠো ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি রংতামাশা করতে থাকেন ও বলেন আমি আপনার অফিসে আসবো আপনার সাথে দেখা করবো। এবং পরে বলেন, নিজের ইয়াবা সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি অস্বীকার করে আমার সাথে যে এসব করতেছে তাকে দরুন। সে কে? কি করতেছে? প্রশ্ন করলে, কথা বলুন বলে আরেক জনকে ফোন ধরিয়ে দিলে সে বলেন, আপনি কে? আপনার অফিস কোথায়? আপনার সাথে দেখা করবো, আমাদের সাথে অনেক বড় বড় সাংবাদিকের পরিচয় আছে। এবং আপনার কাছে একজন সাংবাদিক পাঠাচ্ছি তার কাছ থেকে জেনে নিয়েন।

মুহুরী পাড়া এলাকার স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের দাবি এই অবৈধ ব্যবসার সাথে জড়িত ইয়াবা নারীকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিলে তার ইয়াবা সিন্ডিকেটের সকল গোপন তথ্য বেরিয়ে আসবে বলে মনে করেন।

উক্ত বিষয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানাকে অবগত হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: