শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০৫:০৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দৈনিক আলোকিত উখিয়ায় আপনাকে স্বাগতম

বাইশারী ঈদগাঁও সড়কে জেল ফেরত ডাকাতরা সক্রিয়

  • সময় শনিবার, ১৫ আগস্ট, ২০২০
  • ৩৪৯ বার পড়া হয়েছে

ক্রাইম প্রতিবেদক।

রামু উপজেলার পাহাড়ি জনপদ ঈদগড়-বাইশারী সড়কে ডাকাতি-অপহরণের ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। চিহ্নিত বাইশারীর সন্ত্রাসী জুনায়েদ(৩০)প্রকাশ জুনাইস্সা এবং জালাল উদ্দিন(২৯)প্রকাশ রইব্যা ডাকাত সহ,অপহরণকারিদের অনেকে কারাগার থেকে সাম্প্রতি জামিনে এসে,আবার অপরাধ কর্মকাণ্ডে সক্রিয় হয়ে উঠেছে এই চিহ্নিত অপরাধীদের নেতৃত্বে বাইশারী-ঈদগাঁও সড়কে সম্প্রতি ডাকাতি ও অপহরণের একাধিক ঘটনা সংঘটিত হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় অসংখ্য মামলা রয়েছে।

পবিত্র ঈদুল আযহার পুর্বের রাতে ঈদগড়-ঈদগাঁও সড়কে ডাকাতদল ভাড়ায় চালিত বাইক চালক ও যাত্রীকে অপহরণ করে মুক্তিপন আদায় করে। এনিয়ে আবারো অশান্ত হয়ে উঠছে ঈদগড়-বাইশারী সড়কের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি,
যে কোন মুহূর্তে ঈদগড়-ঈদগাঁও-বাইশারী সড়কে  আরো বড় ধরনের ডাকাতি অপহরণের ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা করেছেন এলাকাবাসী।

সাম্প্রতিক সময়ে কারাবন্ধী থাকা এই সন্ত্রাসীরা জামিনে এসে মাদক,ব্যবসা,ডাকাতি ও অপহরণসহ নানা অপরাধ কর্মকান্ড শুরু করেছে।
বাইশারী-ঈদগাঁও সড়কের পানেরছড়া ঢালা হিমছড়ি ঢালা অর্জুন বাগান গজালিয়া  ধুমছাকাটা এই ৫ পয়েন্টে টহল পুলিশ থাকলেও ঈদগড়-বাইশারী সড়কের ভেংডেভা রাস্তার মুখ অলিরঝিরি এই দুই পয়েন্টে ডাকাতদল হানাদিয়ে যাত্রীবাহি যানবাহনে ডাকাতি ও অপহরণ করে গহীন অরন্যে নিয়ে মুক্তিপণ আদায় করেছে।

ঈদগড়-ঈদগাঁও সড়কে ২ টি পয়েন্টের মধ্যে ১ টিতে ঈদগাঁও থানার পুলিশ ও ১ টি পয়েন্টে ঈদগড় পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশী টহল জোরদার থাকলে ও বাকী পয়েন্ট গুলি অরক্ষিত থাকায় ডাকাতদল নির্বিঘে ডাকাতি ও অপহরণ করে চলে যেতে পারে।

দীর্ঘ সময় অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে বাইশারী-গর্জনিয়া এবং ঈদগড়ের কিছু চিহ্নিত ডাকাত এই অপহরণ-ডাকাতির সাথে জড়িত থাকার প্রমাণ রয়েছে,ডাকাতি এবং মাদক ব্যবসা বিস্তার নিয়ে গর্জনিয়ার বড়বিল গহীন জঙ্গলে দুজনকে জবাই করে নির্মমভাবে হত্যা করার নজিরও রয়েছে।

এই হত্যাকাণ্ডে রইব্যা ডাকাত এবং জাকের আহমদ প্রকাশ গুরাইয়া সরাসরি জড়িত ছিল,এই হত্যা মামলায় রবিউল ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকলেও জাকের আহমদ দুই বছরের কাছাকাছি সময় জেল খেটে বের হয়ে আবার বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

ঈদগড়-বাইশারী এলাকার রাজনীতিবিদ এবং মান্যগণ্য ব্যক্তিরা জানান-ইতিপুর্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে চিহ্নিত ডাকাত ও সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছিল আমরা শান্তিতে ছিলাম,এখন সব ডাকাত ও সন্ত্রাসী জামিনে এসে আবারো ডাকাতি অপহরণ শুরু করে দিয়েছে,
জেল ফেরত চিহ্নিত ডাকাত ও সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করলে আইনশৃংখলা পরিস্তিতি নিযন্ত্রণে থাকবে বলে দাবী করেন তারা।

এ বিষয়ে জানতে মুঠোফোনে জুনায়েদ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে বার বার নিজেকে নির্দোষ এবং ষড়যন্ত্রের শিকার বলে দাবি করে।

রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল খায়ের জানিয়েছেন-আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশের যা করণীয় সবকিছু করবে।মাদক কারবারি এবং ডাকাত-অপহরণকারিদের কোনভাবেই ছাড় দেয়া হবে না। তিনি এলাকার জনসাধারণকেও আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশকে সহায়তা করার অনুরোধ জানিয়েছেন।

জুনায়েত এবং জালাল উদ্দিন প্রকাশ রবিউল দুই সহোদর বান্দরবান বাইশারী ইউনিয়নের ৭নাম্বার ওয়ার্ডের বাদশা মিয়ার ছেলে বলে জানা গেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: