রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:২৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দৈনিক আলোকিত উখিয়ায় আপনাকে স্বাগতম

ইয়াবা গডফাদার ও সন্ত্রাসী জমিলের অস্ত্রের ঝনঝনানিতে লেদার আলীখালী সহ পুরো এলাকাবাসী আতংকে

  • সময় রবিবার, ৯ আগস্ট, ২০২০
  • ১৬৪ বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিবেদক:

টেকনাফ উপজেলায় প্রশাসন মাদক এবং অস্ত্রদারী সন্ত্রাসীদের বিরোদ্ধে কঠোর ভূমিকা পালন করে ইতোমধ্যে নজির স্থাপন করেছেন।বিশেষ করে হাকিম ডাকাতের গ্রুপকে গ্রেফতার করতে বিভিন্ন কৌশলে প্রশাসন কাজ করেছেন।এখনো মাদক কারবারী এবং অগ্নেয়াস্ত্রদারী সন্ত্রাসীদের দমনে কঠোর ভাবে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছেন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। গেল কয়েকমাস আগে র‍্যাব-বাহিনী আকাশে ড্রোন উড়িয়েও ডাকাতদের আস্তনা শনাক্ত করেন,এবং বিভিন্ন ভাবে হাকিম ডাকাতের গ্যাংয়ের কয়েকজন সদস্য পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হলেও, তাদের গ্যাংয়ের বড় সদস্য লেদার আলীখালী এলাকার বাসিন্দা কুখ্যাত সন্ত্রাসী ও ইয়াবা গডফাদার গবী সোলতানের পুত্র জমিল আহমদ এখনো আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিয়ে, ধরা ছোঁয়ার বাহিরে রয়েছে।সে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের পাহারাদার বলেও জানান, এলাকার সচেতন মহল।তার বিরোদ্ধে পত্যক্ষভাবে এলাকার কেউ মুখ খুলতে রাজি নন।সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় যে, সংবাদকর্মীকে গোপন ভাবে অনেকে বিভিন্ন তথ্য দিয়ে সহয়োগিতা করেন। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী দৈনিক “আলোকিত উখিয়া”কে বলেন,ইয়াবা কারবারীদের মদদ দাতা অস্ত্রদারী সন্ত্রাস জমিলের অনেক অভিযোগ আছে, তবে ভয়ে কেউ মুখ খুলতে চাচ্ছেন না! ঐ ব্যক্তি বলেন,বেশ কিছু দিন আগেও এই ইয়াবা ব্যবসায়ী ও অস্ত্রদারি সন্ত্রাস জমিল,রোহিঙ্গা ক্যাম্পের একলোক কে এলোপাথাড়ি কুপিয়েছে।কিন্তু সে এখনো পর্যন্ত বিছানায় কাতরাচ্ছে,সন্ত্রাস জমিলের অস্ত্রের ভয়ে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের বা প্রশাসনকেও অভিযোগ করেন নি, নির্যাতিত ঐ ব্যক্তি। এই ইয়াবা ব্যবসায়ী জমিল ৩০-৪০ সদস্যের গ্যাং তৈরী করে লেদা,আলীখালীতে রাজার মতো চলাচল করতেছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি সংবাদকর্মীকে জানিয়েছেন। অভিযোগ কারীরা এও বলেন,তাদের নাম যদি কোনো ভাবেই প্রকাশ পায়, তাহলে তাদের সকলকে ভিটা-বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে হবে, না হয় ইয়াবা ডন সন্ত্রাসী জমিলের হাতে খুন হওয়ার আশংকা রয়েছে।জমিল আহমদের ভয়ে পুরো এলাকার মানুষ আতঙ্কে বসবাস করে। সে যতদিন গ্রেফতার না হবে, ততদিন এলাকার লোকজন স্বাধীন ভাবে চলাচল করতে পারবে না। স্থানীয় লোকজন সংবাদকর্মীদের মাধ্যমে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছেন।তাকে গ্রেফতার করে শাস্তির মুখোমুখি করলে, বাকী সন্ত্রাস, ডাকাত এবং ইয়াবা ব্যবসায়ীরা আর কারো কাছ থেকে সহযোগিতা পাবে না,এমন উক্তিও জানিয়েছেন সচেতন মহল । কিন্তু প্রশাসনের এতো অভিযান অব্যাহত থাকার পরেও, এখনো প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে সন্ত্রাসী কার্যক্রম নির্দিধায় চালিয়ে যাচ্ছে হাকিম গ্রুপের সদস্য আলীখালী এলাকার বাসিন্দা গবী সোলতানের পুত্র জমিল আহমদ প্রকাশ (জমিল ডাহাইত্বা)।জমিল প্রতিনিয়ত মানুষকে হুমকি দিয়ে বেড়ায়, যেকোনো মানুষকে সে পিপড়ার মতোও মনে করেনা বলে জানান,নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি। অস্ত্রের হুমকি দিয়ে তার কাছে পুরো এলাবাসীকে জিম্মি করে রাখে, এবং এলাকার মানুষ তার হাতে জিম্মি অবস্থায়, ভয়ে ভয়ে বসবাস করছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সচেতন মহল।তার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে চাইলে,নেটওয়ার্কের বিড়ম্বনার কারণে সংযোগ না পাওয়ায়,যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।এই বিষয়ে হ্নীলা ইউনিয়নের দায়িত্বরত এসআই নাজিমের কাছে জানতে চাইলে, তিনি বলেন,অবশ্যই অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তপূর্বক ইয়াবা ব্যবসায়ী এবং সন্ত্রাসের বিরোদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: