রবিবার, ০৫ জুলাই ২০২০, ০৮:৪৬ অপরাহ্ন
নোঠিশ
ওয়েব সংষ্কারের কাজ চলিতেছে। সাময়িক অপরাগতার জন্য দু:খিত

তবে কী আদো রেড জোন বাস্তবায়িত হচ্ছে?

  • সময় বৃহস্পতিবার, ১১ জুন, ২০২০
  • ১৩৪ বার পড়া হয়েছে

সানজীদুল আলম সজীব::

কক্সবাজার জেলা শহর সহ বিভিন্ন এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করে (৬জুন) থেকে আবারো লকডাউন করা হয়।

রেড জোনের আওতাধীন এলাকায় সমস্ত যানবাহন দোকান-পাট, বাজার থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের চলাচল নিষিদ্ধ থাকবে এবং সপ্তাহে দুদিন শনিবার এবং বৃহস্পতিবার বাজার খোলা থাকবে। এবং তা কার্যকরের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ছাড়াও জেলা প্রশাসন কতৃক শহরের ১২টি ওয়ার্ডে বিশেষ সেচ্ছাসেবক নিয়োগ করা হয়েছে।

নিয়ম অনুযায়ী আজ বৃহস্পতিবার কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন পয়েন্ট ঘুরে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। শহরের বড় বাজার এলাকায় দেখা যায় মানুষের উপচে পড়া ভিড়৷ ভিড় ঠেকিয়ে বাজারের ভিতরে যাওয়ার ছিল দুঃস্বাধ্য।

তাহলে এই রেডজোনের মাধ্যমে লকডাউন বাস্তবায়ন কী আদো ফলপ্রসূ হবে। যদি দুদিনে এই অবস্থা হয়?
কতটুকু কার্যকর হবে৷

এবিষয়ে জানতে চাইলে কক্সবাজার সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, আমরা জেলা প্রশাসণ কতৃক নির্দেশনা অনুযায়ী দুই দিন বাজার খোলা রাখায় ব্যবস্হা দিয়েছি, এবং নির্দেশনায় বলা হয়েছে যে সাধারণ মানুষ যেন সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিত রেখে বাজারে যায়। সেখানে শতকরা এক থেকে দুজন বের হচ্ছে স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিত না রেখে ৷
তিনি আরো বলেন, সদর উপজেলা প্রশাসন সর্বোচ্চ গুরুত্ব সহকারে লকডাউন বাস্তবায়নের জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। প্রতিদিন বিভিন্ন জায়গায় জরিমানা করা হচ্ছে, বিভিন্ন গাড়ীর গ্যারেজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। জনগণকে সচেতনতার জন্য প্রশাসনের পাশাপাশি সেচ্ছাসেবক দিয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা হচ্ছে। এবং জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানে বিভিন্ন জনসচেতনতামূলক পোস্টার ও প্রচারণা অব্যাহত আছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে এলাকায় এলাকায় তদারকি বৃদ্ধি করা হয়েছে এবং বিভিন্ন সাহায্য-সহযোগিতাও প্রদান করা হচ্ছে।
আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।

এবিষয়ে সামাজের সচেতন মহলের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান, সপ্তাহে ৫ দিন রেড জোনের কার্যকারিতা লক্ষ্য করা গেছে, প্রশাসন সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে জনগণকে বাসার রাখার, এর জন্য প্রশাসন কে ধন্যবাদ জানাই। তবে এই ৫ দিনের কার্যকারিতা শেষ হচ্ছে ২ দিনেই। যেখানে প্রশাসনের দরকার ছিল আইনশৃংখলা বাহিনী এবং সেচ্ছাসেবীদের মাধ্যমে এই ২ দিন কে বেশী গুরুত্ব দিয়ে সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিত রেখে বাজার কার্যক্রম পরিচালনা করা৷ কারণ সপ্তাহে ২দিন এ মানুষের ভিড় হবে উপছে পড়া। সেখানে প্রশাসন অবস্থান ভিন্ন। আমরা প্রশাসনের উর্ধতনদের প্রতি অনুরোধ এবিষয়টি যেন তারা প্রত্যক্ষ করে৷

প্রসঙ্গত করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় কক্সবাজার জেলা শহর সহ কয়েকটি এলাকাকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। যেসব এলাকায় সংক্রমণের হার বেড়ে গেছে সেসব জায়গায় ১৪ দিন কঠোর ভাবে লকডাউন কার্যকর করা হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: