বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৫১ অপরাহ্ন

সরকারের বৈদেশিক রেমিটেন্স নিজের পকেটে পুরছে রোহিঙ্গা রফিক

  • সময় শুক্রবার, ১৩ মার্চ, ২০২০
  • ১৩৯ বার পড়া হয়েছে

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউপি এলাকার হাসপাতাল সড়কের মো. রফিক ওরফে বার্মায়া রফিক অবৈধ হোন্ডি পাচারে অল্পদিনেই কোটি টাকার মালিক বনে গেছে। জানা যায়,মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পাশে অবস্থান করে। তার আত্নীয় স্বজন দেশের বাইরে থাকার সুবাদে ক্যাম্পকেন্দ্রিক অবৈধ হুন্ডি ব্যবসায় পা জড়িয়ে পড়ে।

মিয়ানমার, বাংলাদেশ, মালয়েশিয়া এসব দেশে টাকা আদান-প্রদানের পথদিয়ে শুরু হয় রোহিঙ্গা রফিকের হুন্ডি কালোবাজারির সিন্ডিকেটের উত্তান। মালয়েশিয়া কোয়ালালাম পুরের আন্তজার্তিক হোন্ডি পাচার চক্রের অন্যতম সদস্য তার বাবা বর্তমানে মালয়েশিয়ায় অবস্থান করে বাংলাদেশে হোন্ডি পাচারের পরিচালনা করে আসছে ছেলে রফিক।

জানা যায়, মুঁখোশদারি গডফাদার হিসেবে সবসময়ই ধরাছোঁয়ার বাহিরে থেকে অর্ধশত ব্যক্তিদের দিয়ে নিরবে অবৈধভাবে বৈদেশিক মুদ্রা পাচার করে অল্পদিনেই কোটিপতি হয়ে দিব্যি চালিয়ে যাচ্ছে এই অবৈধ ব্যবসা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে অনেক হুন্ডি ব্যবসায়ী রোহিঙ্গারা একাধিকবার আটক হলেও বাংলাদেশি বনে যাওয়া রফিক বারবার প্রশাসনের ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে যায়। লক্ষ টাকা দিয়ে জমি ক্রয় করে , আরাকান সড়কে বিলাসবহুল নতুন বাড়ি নির্মাণ করে স্থানীয় বাঙালি তরুণী আখলিমা আকতারের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন। কৌশলে টেকনাফের হোয়াইক্যং থেকে মোটা অংকের টাকা দিয়ে জন্মনিবন্ধন করে কোনোমতে রাজাপালং মাদরাসা ভর্তি হয়ে এসএসসি পরিক্ষায় ফেল করে মালয়েশিয়ায় পাড়ি জমায়। কিছুদিন পর মালয়েশিয়া পুলিশের হাতে ধরা পড়ে কারাবরণ করে বাংলাদেশে চলে আসে।

এদিকে অবৈধভাবে খোলাবাজারে বৈদেশিক মুদ্রা বিনিময়ের হাড় দিনদিন বেড়ে যাওয়ায়, সরকারের ব্যাংখাতে (বৈদেশিক মুদ্রার রেমিটেন্স আয়) চলে যাচ্ছে কালোবাজারিদের পকেটে । অন্যদিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পকেন্দ্রিক হুন্ডি সেন্ডিকেটের মুঁখোশদারি এই গডফাদারের অবৈধ সম্পদ অর্জণের বিষয়ে সদয় অবগতিক্রমে, বাংলাদেশ কাস্টমস, আয়কর বিভাগ ও দুদকের মামলায় তাকে আওতাভুক্ত করার জন্য সুশিল সমাজ দাবি করেছেন।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে উখিয়া থানার (ওসি তদন্ত)নুরুল ইসলাম মজুমদার বলেন,আমরা এখনো এই বিষয়ে তেমন কিছু জানি না,তবে সে যেই হউক সরকারবিরোধী বা কোন অবৈধ কাজে লিপ্ত থাকে তাহলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

পূর্বকোণ/

Please Share This Post in Your Social Media

আরো সংবাদ
%d bloggers like this: