বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:৪২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দৈনিক আলোকিত উখিয়ার অনলাইন পোর্টালে আপনাকে স্বাগতম। আপনার চারপাশে চলমান অনিয়ম দুর্নীতির খবর আমাদের জানান। দেশকে বাচাঁন দেশকে ভালবাসুন

“সুখাতী বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিজম বিদ্যালয়ের শিশুদের পাশে পুলিশ সুপার

  • সময় মঙ্গলবার, ৫ নভেম্বর, ২০১৯
  • ৬৭ বার পড়া হয়েছে

বিশ্বজিৎ রায়, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি-

আজ কুড়িগ্রাম নাগেশ্বনী উপজেলায় “বিশেষ শিশু,বিশেষ অধিকার”এই স্লোগানকে নিয়ে ২০১৫ সালে কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ্বরী উপজেলার সুখাতী গ্রামে গড়ে উঠে বিশেষ চাহিদা সমপন্ন শিশুদের নিয়ে “সুখাতী বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিজম বিদ্যালয় । বিদ্যালয়টি শুরু থেকে নানা বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে বর্তমান সময়ে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে প্রতিষ্ঠানটি । প্রতিষ্ঠানটি সরকারি কোন সহযোগীতা ছাড়াই দীর্ঘদিন ধরে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে । কুড়িগ্রাম জেলার অন্যান্য সরকারি বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী বিদ্যালয় গুলোর থেকে এই বিদ্যালয়ে বিশেষ চাহিদা সমপন্ন শিশুদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার জন্য অনেক আধুনিক সুবিধা রয়েছে,পাশাপাশি এখানকার শিক্ষকরা নিজেরা সরাসরি শিশুদের সাথে মিশে,তাদের বন্ধু হয়ে নানা বিষয়ে পাঠদান দিচ্ছেন । নানা সংগ্রাম পেরিয়ে বিদ্যালয়টি চলে আসছে জেনে,এবার বিশেষ এই বিদ্যালয়টির পাশে দাঁড়ালেন কুড়িগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান,বিপিএম । তিনি গত ৪/১১/২০১৯ইং রোজ সোমবার দুপুরের দিকে বিদ্যালয়টির পরিদর্শনে যান,সেখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও বিশেষ শিশুদের ভালো লাগায় আবেগে আপ্লুত হোন তিনি । বিদ্যালয়টির পাশে থাকার আশ্বাস দেন প্রতিষ্ঠান প্রধানকে । পরে তিনি বিদ্যালয়ের সরঞ্জাম কেনার জন্য তার ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রতিষ্ঠানে নগদ অর্থ প্রদান করেন । পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান দৈনিক আলোকিত উখিয়া কে জানান,আমাদের সোনার বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে ব্যক্তি উদ্যোগে প্রতিটি নাগরিকের উচিৎ ,এসব শিশুদের পাশে দাঁড়ানো ,এবং তিনি সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহ্বান জানান,এসব বিশেষ চাহিদা সমপন্ন শিশুদের পাশে দাঁড়ানোর”।

সুখাতী বুদ্ধি প্রতিবন্ধী ও অটিজম বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান শিক্ষক মোঃ আলমগীর হোসাইন দৈনিক আলোকিত উখিয়া কে বলেন,”কথা রাখলেন আমাদের পুলিশ সুপার,তিনি নিজ কার্যালয়ে আমার প্রজাপতি খুশিকে দোয়া করেন সাথে ওর হেয়ারিং এইড কেনার জন্য নগদ দশ হাজার টাকা ব্যক্তিগতভাবে সহায়তা করেন। আমার খুশি এখন শুনতে পাবে স্পীচ এন্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপি দিলে সে কথাও বলবে ইনশাআল্লাহ।
জীবনের প্রথম কোন সহযোগিতা পেলাম আমার ভালবাসার প্রতিষ্ঠানের প্রজাপতিদের জন্য। সবাই মুখে বলে সহযোগিতা করবে বাস্তবে আর মনে রাখে না। আমিতো কারো কাছে নিজের জন্য কিছু চাইনি চেয়েছিলাম প্রজাপতিদের জন্য, আমার ছেলে মেয়েদের জন্য। আবারো বলছি জীবনের প্রথম প্রাপ্তি।চির ঋণী হয়ে থাকলাম স্যারের কাছে।”

Comments Below
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ
Shares