বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৩:১৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দৈনিক আলোকিত উখিয়ার অনলাইন পোর্টালে আপনাকে স্বাগতম। আপনার চারপাশে চলমান অনিয়ম দুর্নীতির খবর আমাদের জানান। দেশকে বাচাঁন দেশকে ভালবাসুন

ভারুয়াখালী নদীতে ব্রিজ নির্মাণের দাবি জোরালো

  • সময় শনিবার, ২ নভেম্বর, ২০১৯
  • ১৪৫ বার পড়া হয়েছে

স্বেচ্ছাশ্রমে রাস্তা নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন সমাজকর্মী কেফায়ত উল্লাহ
নিজস্ব প্রতিবেদক

সদর উপজেলার পিএমখালী ইউনিয়নের উত্তর ও ভারুয়াখালী ইউনিয়নের দক্ষিণ সীমান্তবর্তী নদীর উপর একটি ব্রীজ নির্মাণ বর্তমানে এলাকাবাসীর গণদাবিতে পরিণত হয়েছে। দুই ইউনিয়নের মধ্যবর্তী ভারুয়াখালী নদীর উপর (খেয়া ঘাট সংলগ্ন) একটি সেতু নির্মাণ আপামর জনগণ যুগ যুগ ধরে দাবি করে আসছিল। ইতিমধ্য দুই ইউনিয়নের সচেতন ব্যক্তিরা উক্ত স্থানে একটি ব্রিজ নির্মাণের আশায় জোর তদবির শুরু করেছেন সরকারের নীতিনির্ধারকদের কাছে। এই দাবি পূরণ সহ এ কাজ এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য স্বতঃস্ফূর্তভাবে এলাকাবাসীরা নদীর ওপারে পিএমখালীর অংশে ১২ ফুট প্রস্থ বাই ৩৩ শত ফুট দৈর্ঘ্যের রাস্তা নির্মাণ কাজ প্রতিদিন ১৫০ থেকে ২০০ জন মানুষ স্বেচ্ছাশ্রমে করে যাচ্ছে। এ শুভ কাজ উদ্বোধন কালে বিশেষভাবে আমন্ত্রিত হয়ে পিএমখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মাষ্টার আবদুর রহিম সাহেবের প্রতিনিধি হিসেবে বিশিষ্ট সমাজকর্মী টিকাদার মোঃ কেফায়েত উল্লাহ ব্রিজের সম্ভাব্য স্থান ও স্বেচ্ছাশ্রমে করা রাস্তার নির্মাণ কাজ সরেজমিন পরিদর্শন করেন গত ২৯ অক্টোবর বেলা দুইটায়। এসময় সে নদীর পাড়ে পথসভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে দান করেন। তিনি বলেন আমি আজ ভারুয়াখালীর মাটি ও মানুষের একতাবদ্ধতা দেখে মুগ্ধ হয়েছি। এই সময়ে একটি বড় প্রকল্পের কাজ স্বেচ্ছাশ্রমে এলাকাবাসী করছে তা বাস্তবে চোখে দেখে আজ মনে অত্যন্ত খুশি আনন্দ লাগছে। সরকারের দিকে চেয়ে না থেকে এলাকার সর্বস্তরের মানুষ এভাবে স্বতঃস্ফূর্তভাবে যেকোনো ভালো কাজে অংশগ্রহণ করলে কোন সমাজ বা এলাকা (দেশ) পিছিয়ে থাকবে না। এতে বোঝা যাচ্ছে এলাকার মানুষ আজ অনেক সচেতন। তাই এসব কাজে সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে কেউ শ্রম দিয়ে ও কেউ সার্বিক সহযোগিতা করে এগিয়ে আসলে কারো মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে না। যারা এমন মহৎ কাজের উদ্যোগ নিয়েছেন তাদের প্রতি অসংখ্যা ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। তিনি আরো বলেন পিএমখালী ভারুয়াখালী সংযোগ সেতুটি বাস্তবায়ন হলে দুই উনিয়নের মানুষের সম্পর্ক আরো জোরদার ও মডেল ইউনিয়ন সহ শহরে পরিনত হয়ে মান-মর্যাদা অনেক গুণে বেড়ে যাবে। আর এ সেতু নির্মাণে পিএমখালী ইউনিয়ন পরিষদর পক্ষ থেকে যেকোনো সহযোগীতা করা হবে বলে চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মাষ্টার আবদুর রহিম সাহেবের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেন। এবং যারা স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করে যাচ্ছেন তাদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

Comments Below
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ
Shares