বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০২:৩৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দৈনিক আলোকিত উখিয়ার অনলাইন পোর্টালে আপনাকে স্বাগতম। আপনার চারপাশে চলমান অনিয়ম দুর্নীতির খবর আমাদের জানান। দেশকে বাচাঁন দেশকে ভালবাসুন

থাইংখালী সীমান্তের ৩ শীর্ষ ইয়াবা কারবারী হুমায়ুন, রকিম ও ইউনুছ

  • সময় শনিবার, ২ নভেম্বর, ২০১৯
  • ৯১ বার পড়া হয়েছে
৩ শীর্ষ ইয়াবা কারবারী হুমায়ুন, রকিম ও ইউনুছ।

আলোকিত ক্রাইম প্রতিবেদকঃ

পালংখালী সীমান্তের ৩ শীর্ষ ইয়াবা কারবারী ও শত অপকর্মের হোতা হুমায়ুন, রকিম ও ইউনুছকে গ্রেপ্তারে বেরিয়ে আসবে ইয়াবা পাচারসহ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। এমন মন্তব্য সচেতন মহলের।

সম্প্রতি বিজিবির অভিযানে সাথে ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ রহমতেরবিল গ্রামের কলিমুল্লাহ বলির ছেলে জামাল উদ্দিনকে আটক করতে সক্ষম হলেও উক্ত ইয়াবার সাথে জড়িত আন্ডার গ্রাউন্ডে থাকা উল্লেখিত শীর্ষ ৩ ইয়াবা কারবারীকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়নি বিজিবি। বর্তমানে উক্ত কারবারীরা ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে প্রকাশ্যে চালিয়ে যাচ্ছে রমরমা ইয়াবা কারবার। ধ্বংস করছে দেশ তথা দেশের যুব ও ছাত্রসমাজ।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের থাইংখালী পন্ডিত পাড়া গ্রামের হামিদুল হকের ছেলে হুমায়ুন প্রকাশ ইয়াবা হুমায়ুন, জামতলী গ্রামের নবী হোসাইনের ছেলে রকিম, ইউনুছ প্রকাশ ইয়াবা খলিফাসহ শীর্ষরা ইয়াবার কালো টাকার বদৌলতে বনে যান রাতারাতি কোটিপতি। সূত্রমতে আরো জানা যায়, ইউনুছ ইয়াবার কালো টাকার পাহাড় দিয়ে স্থানীয় থাইংখালী বনবিটকে মোটা অংকের টাকায় ম্যানেজ করে জামতলীর বাঘঘোনা এলাকায় সরকারি বনে নির্মান করে যাচ্ছে আট্রালিকা ভবন। তারা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুৃলি দেখিয়ে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে লাখ লাখ পিস ইয়াবার চালান পাচার করে কালো টাকার পাহাড় গড়ছে। শুধু তাই নয়, উক্ত কারবারীদের কথামত এলাকার কেউ তাদের ইয়াবা পাচারের বিরুদ্ধে কথা বলেল তাদের উপর নেমে আসে চরম অত্যাচার ও নির্যাতন। তাই এলাকার কেউ তাদের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পাইনা।

সূত্রমতে, উক্ত সিন্ডিকেটের নেতৃত্বে পুরো উখিয়া সীমান্তের অন্তত ২০টি সিন্ডিকেট মোটা দাগের ইয়াবা লেনদেন ও পাচার কাজে লিপ্ত রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সচেতন মহলের মতে, বর্তমান ভয়াবহ জঙ্গী ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের সাথে যেসব কিশোর, যুবক জড়িয়ে পড়েছে, তাদের একটি অংশ মাদকাসক্ত ও মাদক পাচারের সাথে কোন না কোনভাবে সম্পৃক্ত রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তাদের মতে, কারা ইয়াবা পাচার করে বিপুল বিত্ত বৈভবের মালিক হয়েছে, তাদের সম্পর্কে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিশেষ করে র‌্যাব, গোয়েন্দা সংস্থা, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, দুর্নীতি দমন কমিশন সহ সমাজের স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সমন্বিত প্রচেষ্টায় বা নজরদারির দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে, আগামী প্রজন্ম খুবই অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়বে।
উখিয়া থানা সুত্রে , ইয়াবা ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তারের আওতায় নিয়া আসা হবে।

Comments Below
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ
Shares