শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:১১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
রোহিঙ্গা শিবিরে বন্ধ হলো  ৪১ এনজিও’র কার্যক্রম! নিষিদ্ধ ঘোষিত এনজিওগুলোর মধ্যে রয়েছে: ফ্রেন্ডশিপ, এনজিও ফোরাম ফর পাবলিক হেলথ, আল মারকাজুল ইসলাম, স্মল কাইন্ডনেস বাংলাদেশ, ঢাকা আহ্‌ছানিয়া মিশন, গ্রামীণ কল্যাণ, অগ্রযাত্রা, নেটওয়ার্ক ফর ইউনিভার্সাল সার্ভিসেস অ্যান্ড রুরাল অ্যাডভান্সমেন্ট, আল্লামা আবুল খায়ের ফাউন্ডেশন, ঘরনী, ইউনাইটেড সোশ্যাল অ্যাডভান্সমেন্ট, পালস, মুক্তি, বুরো-বাংলাদেশ, এসএআর, আসিয়াব, এসিএলএবি, এসডব্লিউএবি, ন্যাকম, এফডিএসআর, জমজম বাংলাদেশ, আমান, ওব্যাট হেলপার্স, হেল্প কক্সবাজার, শাহবাগ জামেয়া মাদানিয়া কাসিমুল উলুম অরফানেজ, ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট ফর সোশ্যাল অ্যান্ড হিউম্যান অ্যাফেয়ার্স, লিডার্স, লোকাল এডুকেশন অ্যান্ড ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন, অ্যাসোসিয়েশন অব জোনাল অ্যাপ্রোচ ডেভেলপমেন্ট, হিউম্যান এইড অ্যান্ড রিলিফ অর্গানাইজেশন, বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিশ, হোপ ফাউন্ডেশন, ক্যাপ আনামুর, টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্স ইনকরপোরেশন, গরীব, এতিম ট্রাস্ট ফাউন্ডেশনসহ কয়েকটি এনজিও।

তালতলী সরকারি কলেজে প্রবেশপত্র বাবদ অতিরিক্ত টাকা নেয়ার অভিযোগ।

  • সময় বৃহস্পতিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ২২ বার পড়া হয়েছে
  •  
  •  
  •  
  •  

বরগুনাপ্রতিনিধি
বরগুনার তালতলী সরকারি কলেজে প্রবেশপত্র বাবদ টাকা নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে বেগম নূরজাহান বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ডিগ্রি পরীক্ষা কেন্দ্রে গেলে একাধিক পরীক্ষার্থীরা ওই কলেজের স্যারদের সামনে এ অভিযোগ দেন।

পরীক্ষা শুরুর আগে বসা অবস্থায় জিজ্ঞাসা করলে তালতলী সরকারি কলেজের পরীক্ষার্থী সালাউদ্দিন বলেন, এ পরীক্ষার ফরম পুরনের সময় ৪হাজার টাকা নিয়েছে। আজ আবার পরীক্ষার প্রথম দিনে প্রবেশপত্র ফি বাবদ ১হাজার টাকা নিয়েছে। টাকা না দেয়ার ব্যাপারে বলেন, আমাদের করার কিছুই নেই, স্যারেরা বললে আমাদের কষ্ট হলেও দিতে হয়। ওই কলেজের পরীক্ষার্থী শুপ্তি রানী বলেন, ফরম পুরনের সময় এডমিট ফিসহ ৪হাজার টাকা নিলেও এখন বাধ্য হয়ে আবার ১হাজার টাকা দিতে হয়েছে। “সরকারি কোন নিয়ম আছে কিনা জানিনা তবে স্যারেরা বলছে ধার্য করা হয়েছে আমরা তাই দিয়েছি” এমনি বললেন ওই কলেজের পরীক্ষার্থী সুমন, চম্পা, রাবেয়াসহ আরও অনেকে।
এ ব্যপারে পরীক্ষা কেন্দ্রে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও তালতলী সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ রবীন্দ্র নাথ হাওলাদার বলেন, পরীক্ষার্থীর কাছ থেকে আমি নিজে কোন টাকা নেইনাই এবং নেতেও বলা হয়নি। পরীক্ষার্থীরা এটা অযুক্তি কথা বলছে। অন্যকেউ নেছে কিনা তাও জানিনা। তবে পরীক্ষা কেন্দ্রের খরচ বাবদ ২৩ হাজার ৪শ টাকা ব্যাংকে জমা রয়েছে। সেই টাকা দিয়ে এ পরীক্ষায় খরচ করবো।
তালতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে নিছে কিনা জানিনা তবে তারা কেই অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে তদন্তে সত্যতা প্রমানিত হলে কলেজ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments Below
  •  
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ