বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০২:১৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
রোহিঙ্গা শিবিরে বন্ধ হলো  ৪১ এনজিও’র কার্যক্রম! নিষিদ্ধ ঘোষিত এনজিওগুলোর মধ্যে রয়েছে: ফ্রেন্ডশিপ, এনজিও ফোরাম ফর পাবলিক হেলথ, আল মারকাজুল ইসলাম, স্মল কাইন্ডনেস বাংলাদেশ, ঢাকা আহ্‌ছানিয়া মিশন, গ্রামীণ কল্যাণ, অগ্রযাত্রা, নেটওয়ার্ক ফর ইউনিভার্সাল সার্ভিসেস অ্যান্ড রুরাল অ্যাডভান্সমেন্ট, আল্লামা আবুল খায়ের ফাউন্ডেশন, ঘরনী, ইউনাইটেড সোশ্যাল অ্যাডভান্সমেন্ট, পালস, মুক্তি, বুরো-বাংলাদেশ, এসএআর, আসিয়াব, এসিএলএবি, এসডব্লিউএবি, ন্যাকম, এফডিএসআর, জমজম বাংলাদেশ, আমান, ওব্যাট হেলপার্স, হেল্প কক্সবাজার, শাহবাগ জামেয়া মাদানিয়া কাসিমুল উলুম অরফানেজ, ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট ফর সোশ্যাল অ্যান্ড হিউম্যান অ্যাফেয়ার্স, লিডার্স, লোকাল এডুকেশন অ্যান্ড ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন, অ্যাসোসিয়েশন অব জোনাল অ্যাপ্রোচ ডেভেলপমেন্ট, হিউম্যান এইড অ্যান্ড রিলিফ অর্গানাইজেশন, বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিশ, হোপ ফাউন্ডেশন, ক্যাপ আনামুর, টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্স ইনকরপোরেশন, গরীব, এতিম ট্রাস্ট ফাউন্ডেশনসহ কয়েকটি এনজিও।

এক লাখ টাকা খরচ করলেই পাসপোর্ট পায় রোহিঙ্গারা!

  • সময় মঙ্গলবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
  • ৯৮ বার পড়া হয়েছে
  •  
  •  
  •  
  •  

ডেস্ক রিপোর্ট
গড়ে কেবল এক লাখ টাকা খরচ করলেই বাংলাদেশি পাসপোর্ট মিলছে রোহিঙ্গাদের৷তাদের সহায়তা করছে বাংলাদেশেরই দালাল চক্র৷এখন সফটওয়্যারের সঙ্গে ইন্টারভিউ মিলিয়ে রোহিঙ্গাদের সনাক্ত করার কাজ করছে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর৷

গত সপ্তাহে টেকনাফের হ্নীলা জাদিমুরা এলাকায় পুলিশের সঙ্গে ব’ন্দুকযু’দ্ধে নিহত রোহিঙ্গা নূর মোহাম্মদের বাংলাদেশের জাতীয় পরিচয়পত্র- এনআইডি ছিলো৷
বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামে বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী তিন রোহিঙ্গা যুবক আটক হওয়ার পর রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশি পাসপোর্ট পাওয়ার নানা কাহিনী ও কৌশলের কথা জানা যাচ্ছে৷
ওই তিন যুববেকর মধ্যে দু’জন হলেন মিয়ানমারে মংডু জেলার অংচি গ্রামের আলী আহমদের ছেলে মো. ইউসুফ ও মো. মুসা, আরেকজন মিয়ানমারের একই এলাকার মো. আজিজ৷
তারা গত ডিসেম্বর নোয়াখালীর সেনবাগের ঠিকানা ব্যবহার করে এনআইডি সংগ্রহ করেন, পরবর্তীতে নোয়াখালীর আঞ্চলিক পার্সপোর্ট অফিস থেকে সংগ্রহ করেন পাসপোর্ট৷

শুধু পাসপোর্ট নিয়ে বলে থাকেননি তারা৷ চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা আসছিলেন, সেই পাসপোর্ট দিয়ে তুরস্কের ভিসার আবেদন করতে৷ চট্টগ্রামের আকবর শাহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ‘‘তাদের ন্যাশনাল আইডি কার্ড এবং পাসপোর্ট দালালরা করে দিয়েছে৷ দালালরাই তাদের ওই কাজের সময় নোয়াখালী নিয়ে কয়েকদিন রেখেছিল৷
তিন জন দালালের নাম তারা জানিয়েছে৷ তারা ওই তিন দালালকে তিনটি পাসপোর্টের জন্য যথাক্রমে এক লাখ পাঁচ হাজার, ৯০ হাজার এবং ৬০ হাজার টাকা দিয়েছে৷ দুটি পাসপোর্ট করা হয় ডিসেম্বরে এবং একটি জানুয়ারি মাসে৷”

সারাদেশেই রোহিঙ্গাদের পাসপোর্ট করে দেয়ার জন্য এইরকম আরো অনেক দালাল চক্র আছে বলেও জানান জানান মোস্তাফিজুর রহমান৷
বিশ বছরেরও কম সময় আগে ভাসান চর জেগে উঠেছিল৷ বাংলাদেশের মূল ভূখন্ড থেকে এটি ৩০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত৷ সেখানে প্রায় এক লাখ রোহিঙ্গাকে নিয়ে যেতে চাইছে বাংলাদেশ৷
চট্টগ্রাম বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসেও গত এক মাসে আরো চারজন রোহিঙ্গা বাংলাদেশি পাসপোর্ট করতে গিয়ে ধ’রা পড়েছেন৷ বিভাগীয় পাসপোর্ট অফিসের পরিচালক আবু সাঈদ জানান, ‘‘আমরা মূলত ইন্টারভিউ করে ওই চারজনকে শনাক্ত করে পু’লিশে দিয়েছি৷ কিছু কৌশগত প্রশ্ন করলেই তারা ধ’রা পড়ে যায়৷
আবার ভাষার কারণেও ধ’রা পড়ে৷ যেমন বাংলাদেশি নাগরিক হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে সে বলতে পারবে৷ তবে দালালরা আমাদের কৌশল জেনে যায়৷ তাই আমাদেরও কৌশল পরিবর্তন করতে হয়৷ কিন্তু এনআইডি বা জন্ম নিবন্ধনের কাগজ তারা কিভাবে জোগাড় করে এটাই প্রশ্ন৷”

গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে কক্সবাজারের উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের ডয়চে ভেলেকে এই কৌশলের একটি ধারণা দিয়েছিলেন৷
‘‘ধরুন, ময়মনসিংহে এক নারীর নাম মরিয়ম৷ তিনি বাংলাদেশেরই নাগরিক৷ তাঁর ন্যাশনাল আইডি কার্ড জোগাড় করে নাম, ঠিকানা, পিতা বা স্বামীর নাম সবই ঠিক রাখা হয়৷ এই একটি ডকুমেন্ট ধরেই আরো প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট পাওয়া যায়৷ এরপর ওই নামেই আরেক রোহিঙ্গা নারীর জন্য পাসপোর্টের আবেদন করা হয়৷”

এই দু’র্নীতির সঙ্গে পাসপোর্ট অফিসের নিম্ন পর্যায়ের কিছু কর্মচারীও জড়িত থাকার অ’ভিযোগ রয়েছে৷ ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সোহায়েল হোসেন খান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরাই তো রোহিঙ্গাদের শনাক্ত করছি৷
এ পর্যন্ত পাসপোর্টের আবেদন করতে আসা কয়েকশ’ রোহিঙ্গাকে শনাক্ত করে পুলিশে দিয়েছি৷ তবে তারা আবেদনের আগে এনআইডি, জন্ম নিবন্ধন কিভাবে পায় তা তো আমরা বলতে পারব না৷ তারাতো পু’লিশ ভেরিফিকেশন রিপোর্টও পায়৷”
তিনি বলেন, ‘‘আম’রা আমাদের সব পাসপোর্ট অফিসকে সতর্ক করেছি৷ এখন আম’রা সফটওয়ার ব্যবহার করছি ভু’য়া আবেদন ধ’রার জন্য৷ আর ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমেও শ*নাক্ত করছি৷ বিশেষ করে আমাদের কাছে দেয়া ফিঙ্গার প্রিন্ট, রোহিঙ্গাদের ফিঙ্গার প্রিন্ট এবং এনআইডির ফিঙ্গার প্রিন্ট মিলিয়ে দেখছি৷”

তিনি অ’ভিযোগ করেন, ‘‘রোহিঙ্গাদের ফিঙ্গার প্রিন্ট আমরা এনআইডি প্রকল্পকে দিয়েছি৷ তারপরও তো রোহিঙ্গারা এনআইডি পাচ্ছে” স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, রোহিঙ্গাদের যে তালিকা, ফিঙ্গার প্রিন্ট ও ছবি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আছে, তার বাইরেও অনেক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আছেন৷
চট্টগ্রাম এলাকায় অন্তত ৭৩টি সন্দেহ’জনক এনআইডি দেখা গেছে সার্ভারে৷ এ নিয়ে ঢাকায় এই প্রকল্পের দায়িত্বশীল কাউকে কথা বলার জন্য পাওয়া যায়নি৷
তবে চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মুনির হোসাইন খান বলেন, ‘‘এটা খতিয়ে দেখার জন্য একটি ত’দন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে ঢাকা থেকে৷ তার একজন সদস্য উপ সচিব খুরশিদ আলম এরই মধ্যে চট্টগ্রামে আছেন ত’দন্তের জন্য৷”

রোহিঙ্গারা কিভাবে এনআইডি পায় জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, ‘‘এটা ত’দন্ত শেষে বলা যাবে৷” গত বছরের এপ্রিলে তৎকালীন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, প্রায় আড়াই লাখ রোহিঙ্গা বিভিন্ন সময়ে অ’বৈধ প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশি পাসপোর্ট সংগ্রহ করে বিদেশে পাড়ি জমিয়েছেন৷
আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, গত এক বছরে অ’বৈধ উপায়ে পাসপোর্ট সংগ্রহের অভিযোগে কমপক্ষে চারশ’ রোহিঙ্গা নারী ও পুরুষ আটক হয়েছেন৷

Comments Below
  •  
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ