বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
রোহিঙ্গা শিবিরে বন্ধ হলো  ৪১ এনজিও’র কার্যক্রম! নিষিদ্ধ ঘোষিত এনজিওগুলোর মধ্যে রয়েছে: ফ্রেন্ডশিপ, এনজিও ফোরাম ফর পাবলিক হেলথ, আল মারকাজুল ইসলাম, স্মল কাইন্ডনেস বাংলাদেশ, ঢাকা আহ্‌ছানিয়া মিশন, গ্রামীণ কল্যাণ, অগ্রযাত্রা, নেটওয়ার্ক ফর ইউনিভার্সাল সার্ভিসেস অ্যান্ড রুরাল অ্যাডভান্সমেন্ট, আল্লামা আবুল খায়ের ফাউন্ডেশন, ঘরনী, ইউনাইটেড সোশ্যাল অ্যাডভান্সমেন্ট, পালস, মুক্তি, বুরো-বাংলাদেশ, এসএআর, আসিয়াব, এসিএলএবি, এসডব্লিউএবি, ন্যাকম, এফডিএসআর, জমজম বাংলাদেশ, আমান, ওব্যাট হেলপার্স, হেল্প কক্সবাজার, শাহবাগ জামেয়া মাদানিয়া কাসিমুল উলুম অরফানেজ, ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট ফর সোশ্যাল অ্যান্ড হিউম্যান অ্যাফেয়ার্স, লিডার্স, লোকাল এডুকেশন অ্যান্ড ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন, অ্যাসোসিয়েশন অব জোনাল অ্যাপ্রোচ ডেভেলপমেন্ট, হিউম্যান এইড অ্যান্ড রিলিফ অর্গানাইজেশন, বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিশ, হোপ ফাউন্ডেশন, ক্যাপ আনামুর, টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্স ইনকরপোরেশন, গরীব, এতিম ট্রাস্ট ফাউন্ডেশনসহ কয়েকটি এনজিও।

তরুণীকে উত্ত্যক্ত করে জুতাপেটা খেল মাতাল পুলিশ

  • সময় শুক্রবার, ৩০ আগস্ট, ২০১৯
  • ৩৯ বার পড়া হয়েছে
  •  
  •  
  •  
  •  

আলোকিত ডেস্কঃ

মাতাল হয়ে রাজশাহীতে তরুণীকে উ’ত্ত্যক্ত করে জুতাপে’টা খেয়েছেন সাব্বির হোসেন (৩০) নামে এক পু’লিশ কনস্টেবল। বৃহস্পতিবার রাতে নগরীর লক্ষ্মীপুর কাঁচাবাজার এলাকায় এই কা’ণ্ড ঘটান তিনি। পরে এলাকাবাসী তাকে গণধোলায় দেয়। খবর পেয়ে আ’হত ওই পু’লিশ সদস্যকে উ’দ্ধার করে রাজপাড়া থা’না পু’লিশ।অ’ভিযুক্ত সাব্বির হোসেন নগর পু’লিশের পবা থা’নায় কর্ম’রত ছিলেন। এক সময় পরিবার নিয়ে সাব্বির নগরীর ওই এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।

এ ঘটনার পর তাকে সেখান থেকে প্রত্যাহার করে পু’লিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। তার বি’রুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথাও জানিয়েছে নগর পু’লিশ।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রায় প্রতিদিনই ওই এলাকায় গিয়ে নারীদের নানাভাবে উ’ত্ত্যক্ত করেন কনস্টেবল সাব্বির। বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে ওই এলাকার এক তরুণীকে উ’ত্ত্যক্ত করেন সাব্বির। এতে জুতা খুলে কনস্টেবল সাব্বিরকে পে’টাতে শুরু করেন তরুণী। এ সময় তার সঙ্গে যোগ দেন বিভিন্ন সময় উ’ত্ত্যক্তের শিকার আরও কয়েক তরুণী। পরে এলাকাবাসীও যুক্ত হয়ে উত্তমমধ্যম দেয় তাকে।

প্রা’ণ বাঁ’চাতে বাসায় ঢুকে পড়েন তিনি। পরে ওই বাড়ি ঘেরাও করে এলাকাবাসী। এনিয়ে উত্তে’জনা ছড়ালে ঘটনাস্থলে আসে রাজপাড়া থা’না পু’লিশ। পরে পু’লিশ তাকে হেফাজতে নিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়।এদিকে রাতেই ওই পু’লিশ সদস্যের মা’দক সেবনের বিষয়টি নিশ্চিত হতে ডোপ টেস্টের উদ্যোগ নেয় থা’না পু’লিশ। তবে ওই সময় টেস্টের ব্যবস্থা না থাকায় তা ভেস্তে যায়। পরে কনস্টেবল সাব্বিরকে উ’দ্ধার করে নিয়ে যান তারা।

রাজপাড়া থা’নার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হায়দার আলী খান বলেন, রাতে তার ডোপ টেস্ট করা যায়নি। পরে বিষয়টি নগর পু’লিশের শীর্ষ কর্মক’র্তাদের জানানো হয়েছে। তারাই এনিয়ে ব্যবস্থা নেবেন।এদিকে রাতেই মা’দক সেবনের বিষয়টি স্বীকার করেন কনস্টেবল সাব্বির হোসেন। তিনি বলেন, মাঝেমধ্যে একটু আধটু খান। আর নারীদের উ’ত্ত্যক্তের বিষয়টি দুর্ঘ’টনা বলে দাবি করেন তিনি।

এ বিষয়ে আরএমপির মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, শুক্রবার সকাল পর্যন্ত কনস্টেবল সাব্বিরের বি’রুদ্ধে কেউ লিখিত অ’ভিযোগ দেননি। কিন্তু যেহেতু একটা অ’ভিযোগ উঠেছে তাই তাকে থা’না থেকে রাতেই প্রত্যাহার করে পু’লিশ লাইনে নেয়া হয়েছে। তার বি’রুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Comments Below
  •  
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ