শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:১৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
রোহিঙ্গা শিবিরে বন্ধ হলো  ৪১ এনজিও’র কার্যক্রম! নিষিদ্ধ ঘোষিত এনজিওগুলোর মধ্যে রয়েছে: ফ্রেন্ডশিপ, এনজিও ফোরাম ফর পাবলিক হেলথ, আল মারকাজুল ইসলাম, স্মল কাইন্ডনেস বাংলাদেশ, ঢাকা আহ্‌ছানিয়া মিশন, গ্রামীণ কল্যাণ, অগ্রযাত্রা, নেটওয়ার্ক ফর ইউনিভার্সাল সার্ভিসেস অ্যান্ড রুরাল অ্যাডভান্সমেন্ট, আল্লামা আবুল খায়ের ফাউন্ডেশন, ঘরনী, ইউনাইটেড সোশ্যাল অ্যাডভান্সমেন্ট, পালস, মুক্তি, বুরো-বাংলাদেশ, এসএআর, আসিয়াব, এসিএলএবি, এসডব্লিউএবি, ন্যাকম, এফডিএসআর, জমজম বাংলাদেশ, আমান, ওব্যাট হেলপার্স, হেল্প কক্সবাজার, শাহবাগ জামেয়া মাদানিয়া কাসিমুল উলুম অরফানেজ, ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট ফর সোশ্যাল অ্যান্ড হিউম্যান অ্যাফেয়ার্স, লিডার্স, লোকাল এডুকেশন অ্যান্ড ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন, অ্যাসোসিয়েশন অব জোনাল অ্যাপ্রোচ ডেভেলপমেন্ট, হিউম্যান এইড অ্যান্ড রিলিফ অর্গানাইজেশন, বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিশ, হোপ ফাউন্ডেশন, ক্যাপ আনামুর, টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্স ইনকরপোরেশন, গরীব, এতিম ট্রাস্ট ফাউন্ডেশনসহ কয়েকটি এনজিও।

কক্সবাজারে প্যারাবন কেটে চিংড়ি ঘের ও লবণ মাঠঃ দুদকের অভিযান শুরু

  • সময় মঙ্গলবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৯
  • ৪৫ বার পড়া হয়েছে
  •  
  •  
  •  
  •  

আলোকিত প্রতিবেদকঃ

কক্সবাজার উপকূলে বনভূমি দখল করে প্যারাবন কেটে চিংড়িঘের ও লবণ চাষ কারীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক)। অভিযানের প্রথম দিন ২৬ আগস্ট জেলার কুতুবদিয়া উপজেলার উত্তর ধুরুং এলাকায় অভিযানে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পান দুদকের একটি টিম। অভিযানের নেতৃত্ব দেন দুদক চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর ও উপসহকারী পরিচালক মোঃ রিয়াজুল আলম।

উপসহকারী পরিচালক মোঃ রিয়াজুল আলম জানান, স্থানীয় লোকজনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বনবিভাগের সাথে নিয়ে দুদকের পক্ষ থেকে আমরা অভিযান পরিচালনা করি। অভিযানের সময় উত্তর ধুরুং ইউনিয়নের মহিলা সদস্য ফরিজা বেগম এর নেতৃত্বে প্রায় ৪০ একর বনভূমি দখল করে প্যারাবন কেটে লবণ মাঠ তৈরি করার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তীতে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দুদকের এ কর্মকর্তা বলেন, কক্সবাজার উপকূলীয় এলাকায় বনভূমি দখল করে প্যারাবন কেটে চিংড়িঘের কিংবা লবণ মাঠ তৈরি করা দখলদারদের বিরুদ্ধে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ১৪ নভেম্বর কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কাছে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পাঠানো এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উপকূলীয় এলাকা চকরিয়া উপজেলার ১১ মৌজার ৮ হাজার ৯০৯ দশমিক ৫০ একর জমি চিংড়ি চাষের জন্য ইজারা দেয়া হয়েছে। আর অবৈধভাবে চিংড়ি চাষ হচ্ছে ৩ হাজার ১০১ দশমিক ৫৩ একর জমিতে।

গোলদিয়ারচর ও চিলখালীর চর এলাকায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, প্যারাবনের বিপুল পরিমাণ গাছ কেটে বেশ কয়েকটি চিংড়িঘের তৈরি করা হয়েছে। ঘের পাহারার জন্য বসানো হয়েছে অন্তত ২০টি ঘর। জানা যায়, ৩০ জন সশস্ত্র লোক দিন-রাত পালাক্রমে পাহারায় থাকে।

কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, গত এক সপ্তাহে কয়েকশ শ্রমিক দুই লাখের বেশি বাইন ও কেওড়া গাছ কেটে ফেলেছেন। গাছগুলো চকরিয়ার বিভিন্ন ইটভাটায় বিক্রি করা হয়েছে। চকরিয়া ও কক্সবাজারের কয়েকজন প্রভাবশালী বন নিধনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। ছোট গাছ থাকলে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দিয়ে বন পরিষ্কার করা হয়। পরে গাছের গোড়া উপড়ে ফেলা হয়। ফলে বনের চিহ্নও অবশিষ্ট থাকে না।

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল জব্বার (৪০) বলেন, আগে এ প্যারাবনে হরিণ, বানর, বাঁদুড়, সাপ, বকসহ নানা পাখির বিচরণ ছিল। প্যারাবনে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করত এলাকার কয়েকশ পরিবার। কিন্তু ঘের মালিকদের কারণে এখন সবই বিলুপ্তির পথে।

তিনি বলেন, এক সপ্তাহের মধ্যে কয়েক হাজার একরের প্যারাবনের লক্ষাধিক বাইন ও কেওড়া গাছ কেটে নিলেও বন বিভাগ নীরব ভূমিকা পালন করছে। তারা একটি গাছও উদ্ধার করতে পারেনি।

এ প্রসঙ্গে কথা বলতে উপকূলীয় বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা গোলাম মর্তুজার সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে বিভিন্ন ব্যস্ততার কথা বলে সংযোগ কেটে দেন।

স্থানীয় পরিবেশবাদী সংগঠন ইয়ুথ এনভায়রনমেন্ট সোসাইটি (ইয়েস) কক্সবাজারের প্রধান উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট রমিজ আহমেদ বলেন, চকরিয়ার গোলদিয়ার চর ও চিলখালীর চর এলাকায় পাঁচ লাখেরও বেশি বাইন ও কেওড়া গাছ ছিল। এরই মধ্যে দুই লাখের বেশি গাছ কেটে চিংড়িঘের করায় উপকূলের ১০ লাখ মানুষ ঝুঁকির মুখে পড়েছে। অথচ বন বিভাগের কার্যকর কোনো পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না।

কক্সবাজার উপকূলীয় প্যারাবন কেটে গড়ে ওঠা চিংড়িঘের নিষিদ্ধ ও দখল করা জমি উদ্ধারের দাবি জানিয়ে গত ৩ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কাছে চিঠি দেয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি জানান, কক্সবাজার উপকূলীয় এলাকার বনভূমি চিংড়ি চাষের জন্য লিজ না দিতে হাইকোর্টের একটি নির্দেশনাও রয়েছে।

Comments Below
  •  
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ