বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
রোহিঙ্গা শিবিরে বন্ধ হলো  ৪১ এনজিও’র কার্যক্রম! নিষিদ্ধ ঘোষিত এনজিওগুলোর মধ্যে রয়েছে: ফ্রেন্ডশিপ, এনজিও ফোরাম ফর পাবলিক হেলথ, আল মারকাজুল ইসলাম, স্মল কাইন্ডনেস বাংলাদেশ, ঢাকা আহ্‌ছানিয়া মিশন, গ্রামীণ কল্যাণ, অগ্রযাত্রা, নেটওয়ার্ক ফর ইউনিভার্সাল সার্ভিসেস অ্যান্ড রুরাল অ্যাডভান্সমেন্ট, আল্লামা আবুল খায়ের ফাউন্ডেশন, ঘরনী, ইউনাইটেড সোশ্যাল অ্যাডভান্সমেন্ট, পালস, মুক্তি, বুরো-বাংলাদেশ, এসএআর, আসিয়াব, এসিএলএবি, এসডব্লিউএবি, ন্যাকম, এফডিএসআর, জমজম বাংলাদেশ, আমান, ওব্যাট হেলপার্স, হেল্প কক্সবাজার, শাহবাগ জামেয়া মাদানিয়া কাসিমুল উলুম অরফানেজ, ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট ফর সোশ্যাল অ্যান্ড হিউম্যান অ্যাফেয়ার্স, লিডার্স, লোকাল এডুকেশন অ্যান্ড ইকোনমিক ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন, অ্যাসোসিয়েশন অব জোনাল অ্যাপ্রোচ ডেভেলপমেন্ট, হিউম্যান এইড অ্যান্ড রিলিফ অর্গানাইজেশন, বাংলাদেশ খেলাফত যুব মজলিশ, হোপ ফাউন্ডেশন, ক্যাপ আনামুর, টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্স ইনকরপোরেশন, গরীব, এতিম ট্রাস্ট ফাউন্ডেশনসহ কয়েকটি এনজিও।

সালাহর জোড়া গোলে উড়ে গেলো আর্সেনাল

  • সময় রবিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৯
  • ৫৬ বার পড়া হয়েছে
  •  
  •  
  •  
  •  

অ্যানফিল্ডে মহারণ বলেছিল একে অনেকেই। কিন্তু লিভারপুলের মাঠে গিয়ে মোহামেদ সালাহদের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি আর্সেনাল। জয়ের নেশায় খেলতে গিয়ে হেরে আসতে হলো ৩-১ গোলের ব্যবধানে। জোড়া করলেন মিসরীয় সুপার স্টার মোহামেদ সালাহ। লিভারপুলের হয়ে বাকি গোলটি করেন জোয়েল মাতিপ। আর্সেনালের হয়ে একমাত্র গোলটি করেন লুকাস তোরেইরা।

এ নিয়ে লিগে টানা তিন ম্যাচেই জিতলো লিভারপুল। শুধু তাই নয়, ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে টানা ১২টি জয় পেলো অল রেডরা। ইয়ুর্গেন ক্লুপের অধীনে এটা লিভারপুলের একটি রেকর্ড। ১৯৯০ সালে কেনে ডালগ্লিসের অধীনে টানা ১২টি ম্যাচ জিতেছিল তারা। ইয়ুর্গেন ক্লুপ সেই রেকর্ডে ভাগ বসালেন।

লিভারপুল-আর্সেনাল মহারণ শুরুর আগে গানারদের স্প্যানিশ কোচ উনাই এমেরি লিভারপুলের মাঠে এগিয়ে রেখেছিলেন স্বাগতিকদেরই। পাশাপাশি গত মৌসুমে সালাহদের কাছে গত ডিসেম্বরে ৫-১ গোলের হারের টাটকা স্মৃতিও মনে ছিল উনাই এমেরির।

সেই স্মৃতি নিয়েই শনিবার রাতে অ্যানফিল্ডে লিভারপুলের মুখোমুখি হয় গানার্সরা। ম্যাচের প্রথমার্ধের খেলা কিছুটা আশ্বস্ত করলেও ফরোয়ার্ডদের সঙ্গে ডিফেন্ডারদের উপর্যুপরি ব্যর্থতায় অ্যানফিল্ড থেকে খালি হাতেই ফিরতে হল আর্সেনালকে।

প্রথমার্ধের প্রথম কোয়ার্টারে নিজেদের গুছিয়ে নেওয়ার চক্করে অনেকটাই নিষ্প্রভ ছিল লিভারপুল। সে সুযোগে দাপট দেখায় আর্সেনাল। লিভারপুল গোলরক্ষক একটি বল ক্লিয়ার করতে বক্সের বাইরে চলে এলে ম্যাচের ১১ মিনিটে গোলের সুযোগ তৈরি হয় আর্সেনালের সামনে।

কিন্তু সেই সুবর্ণ সুযোগ মোটেও কাজে লাগাতে পারেনি গানাররা। আংশিক প্রতিহত হওয়া বল পেয়ে তা ফাঁকা গোলে ঠেলতে ব্যর্থ হন আউবামেয়াং। আর্সেনালের প্রথম একাদশে এদিন অভিষেক হওয়া নিকোলাস পেপের কাছেও সুযোগ চলে আসে দলকে এগিয়ে নেয়ার। কিন্তু ব্যর্থ হন তিনিও।

অন্যদিকে প্রতি আক্রমণে ধীরে ধীরে ম্যাচে ফিরতে থাকা ইয়ুর্গেন ক্লুপের ছেলেরা সেই অর্থে গোলের ভালো কোনো সুযোগ তৈরি করে উঠতে না পারলেও ৪১ মিনিটে আসল কাজটি করে দিলেন জোয়েল মাতিপ। ডান দিক থেকে আলেকজান্ডার আর্নল্ডের কর্নার থেকে গোলের তালা খোলেন তিনি। ফলে প্রথমার্থ শেষ হওয়ার আগেই ১-০ গোলে এগিয়ে যায় লিভারপুল।

বিরতি থেকে ফিরে ডেভিড লুইসের ভুলে ম্যাচে দ্বিতীয় গোলটি পেয়ে যায় লিভারপুল। সদ্যই চেলসি থেকে আসা ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার এ ক্ষেত্রে বল ধরে বক্সে আগুয়ান সালাহকে অবৈধভাবে বাধা দিলে পেনাল্টি পেয়ে যায় লিভারপুল। স্পট কিক নিতে আসেন সালাহ নিজেই এবং দুরন্ত গতির স্পটকিক থেকে ব্যবধান ২-০ করেন মিসরীয় স্ট্রাইকার। ৫৮ মিনিটে আবারও গোল। এবারও মোহামেদ সালাহ। আর্সেনাল ডিফেন্সকে চূর্ণ করে একক দক্ষতায় দলকে ৩ গোলের ব্যবধান এনে দেন তিনি।

শেষ মুহূর্তে নিজেদের ফিরে পেতে আর্সেনাল কোচ বদলি হিসেবে মাঠে নামান লুকাস তোরেইরাকে। ৮৫ মিনিটে সুপার-সাব তোরেইরা একটি গোল শোধ করলেও তা জয় বা ড্রয়ের জন্য পর্যাপ্ত ছিল না। শেষ পর্যন্ত ৩-১ গোলে দুরন্ত জয়ে তিন পয়েন্ট নিশ্চিত করেই মাঠ ছাড়ে অল রেডরা। লিগের প্রথম ম্যাচ তিন ম্যাচ থেকে ৯ পয়েন্ট সংগ্রহ করে লিগ শীর্ষে ইউরোপ চ্যাম্পিয়নরা। লিভারপুলের কাছে হারা আর্সেনাল ৩ ম্যাচ থেকে ৬ পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে।

Comments Below
  •  
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ