সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ০১:০২ অপরাহ্ন
শিরোনাম
একজন আল মাহমুদ বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে শিক্ষা নিতে হবে : স্পিকার সিলিন্ডারে গ্যাস কতটুকু আছে জানার সহজ উপায় ইউআইইউতে স্পিড মার্কেটিং সামুরাই কমপিটিশন অনুষ্ঠিত তামিমের জায়গায় জহুরুল না সাইফ? ৮০টির পর্যালোচনায় ডেঙ্গুতে মৃত্যু ৪৭ : ডেথ রিভিউ কমিটি শরীরে ভিটামিনের ঘাটতি বুঝবেন যেভাবে প্রোফাইল ছবি দিয়ে লগইন বন্ধ করুন ঢাকায় আসছে বিশ্বসেরা ইয়ান্নি অর্কেস্ট্রা ও স্করপিয়ন্স লামায় ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে কুতুবউদ্দিনের বাগানে হামলার অভিযোগ রাখাইনে বিমান হামলা, ব্যাপক গোলাবর্ষণ সাঘাটার পরিশ্রমী শিল্পি বেগম এর গল্প ।। পলাশবাড়ীতে বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতা প্রদানের শুভ উদ্বোধন ।। পাইকগাছায় ভাঙ্গনকবলিত এলাকায় ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে এমপি – বাবুর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ ২৭শে অগাস্ট বিশাল শোক র‍্যালী ও শোক সভার আয়োজন করতে যাচ্ছে কৃষকলীগ কক্সবাজার জেলা। পাইকগাছায় শিববাটি ব্রিজের টোল মুক্ত ও শিবসা নদী খননের দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে গোবিন্দগঞ্জ থানা জুলাই মাসে ৮ ক্যাটাগরিতে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন পেকুয়ায় চিকিৎসক ও ব্যাংক কর্মকর্তাকে কুপিয়ে জখম আসামীদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন পরিচয়ে ১৬ লাখ টাকাসহ মোবাইল নিয়ে উধাও হওয়া প্রতারক গ্রেফতার রাখাইনে তুমুল সংঘর্ষ, নিহত ৫৩ রোহিঙ্গা: সংকট বাড়ছে, কমছে শরণার্থীদের জন্য অর্থ মহেশখালীতে চলাচলের রাস্তা না থাকায় ধান ক্ষেতের উপর দিয়ে লাশ বহন ! নাগরিকত্ব দিলে একসঙ্গে মিয়ানমারে ফিরব, ঘোষণা রোহিঙ্গাদের অষ্টম শ্রেণি পাসেই নিয়োগ দেবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ কাবিননামায় ‘কুমারী’ শব্দ বাদ দেয়ার নির্দেশ উখিয়ায় উদ্ধার গুলিবিদ্ধ লাশের পরিচয় মিলেছে ১০ বছর মেয়াদি ইলেকট্রনিক্স পাসপোর্ট মিলবে তিন দিনের মধ্যেই ঢাকায় গাঁজার নিয়ন্ত্রণ ১০ মহাজনের হাতে মাহী বি চৌধুরীকে দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ গফরগাঁওয়ে বলাৎকারের অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেফতার

ইয়াবা ব্যবসায়ী সেন্ডিকেটদের সাথে রাগব বোয়ালদের ইশারা রয়েছে

উখিয়ায় ইয়াবা সিন্ডিকেট ভাঙ্গতে হবে পুলিশি অভিযান জরুরী

  • সময় মঙ্গলবার, ৩০ জুলাই, ২০১৯
  • ২৩ বার পড়া হয়েছে

আলোকিত ক্রাইম প্রতিবেদকঃ
বালুখালীর এনামুল হকের নেতৃত্ব বালুখালী সিন্ডিকেট, বিডিআর দোভাসী সাহাব উদ্দিনের নেতৃত্বে ঘুমধুম সিন্ডিকেট, ইমাম হোসেনের নেতৃত্বে জলপাইতলী সিন্ডিকেট, নুরুল আলম পুতিয়া, আবদুর রহমান ও আবদুর রহিমের নেতৃত্বে বালুখালী ঘোনারপাড়া সিন্ডিকেট, বাবুল ও ইসলামের নেতৃত্বে ঘিলাতলী সিন্ডিকেট, আতা উল্লার নেতৃত্বে উখিয়া সদর সিন্ডিকেট, বাবুলের নেতৃত্বে হিজলিয়া সিন্ডিকেট, আলী আহামদ, জাহাঙ্গীর আলম ও নুরুল আলমের নেতৃত্বে ভালুকিয়া সিন্ডিকেট, আকতারের নেতৃত্বে সিকদার বিল সিন্ডিকেট, শাহাজান খলিফা , আবদুল্লা, হারুন, রহমান ও লালুর নেতৃত্বে ডিগিলিয়া সিন্ডিকেট অন্যতম।

ক্রাইম প্রতিবেদক
পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমারের তৈরি মরণঘাতী ইয়াবার বিস্তার ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। শহরের অভিজাত আবাসিক এলাকা থেকে শুরু করে কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, বানিজ্যিক এলাকা সহ পাড়া মহল্লায় হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে ইয়াবা। উখিয়া সীমান্ত দিয়ে মিয়ানমার থেকে প্রতিদিনই এদেশে ঢুকছে ইয়াবার চালান। প্রায় সময় ইয়াবা আটকের ঘটনা ঘটলেও ইয়াবার চালান আসা বন্ধ হয়নি বরং প্রায় প্রতিদিনই এর সাথে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন সদস্য। উখিয়া উপজেলার আনাচে-কানাচে ইয়াবা পাচারে নিয়োজিত হয়ে পড়েছে নারী পুরুষ, যুবক, যুবতী থেকে শুরু করে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কর্মীরাও।

সিন্ডিকেটের সদস্য হওয়ার মাধ্যমে এসব পাচারকারীরা কম সময়ে কোটিপতি হওয়ার নেশায় পড়েছে। ফলে উখিয়ায় অপ্রতিরোধ্য হয়ে পড়েছে ইয়াবা বানিজ্য। শুধুমাত্র উখিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ২০ টি ইয়াবা সিন্ডিকেট তৎপর রয়েছে মরণঘাতী এ ইয়াবা ব্যবসায়। আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ম্যানেজের মাধ্যমে এসব সিন্ডিকেট বেপরোয়া ভাবে প্রসাশনের নাকের নগার উপর দিয়ে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে বলে সচেতন মহলের অভিযোগ। মাঝে মধ্যে সোর্সের দেওয়া তথ্যের ভিক্তিতে গুটিকয়েক ইয়াবা উদ্ধারের ঘটলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকে সিন্ডিকেটের মুল সদস্যরা। শুধুমাত্র ইয়াবা বাহককে আটকের মাধ্যমে স্থানীয় প্রশাসন তাদের দ্বায়িত্ব শেষ করায় এর সাথে জড়িত গড়ফাদার বা সিন্ডিকেটের ব্যাপারে কোন তথ্য উদ্ধার করা যাচ্ছেনা বলে স্থানীয় সচেতন মহলের অভিযোগ। জানা গেছে,উখিয়া সীমান্তের বালুখালী, শিয়াল্লাপাড়া, বেতবুনিয়া, দরগাবিল, ডেইলপাড়া ডিগিলিয়া,বরইতলী, রহমতের বিল,ধামনখালী সীমান্ত দিয়ে প্রতিদিন ইয়াবার চালান এসে সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রিত নির্ধারিত স্থানে জমা হয়। পরবর্তিতে সিন্ডিকেট সদস্যরা এসব ইয়াবা সড়ক পথে কক্সবাজার, চট্টগ্রাম ও রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন বড় বড় পাইকারী ব্যবসায়ীদের হাতে পৌঁছে দেয়। অনুসন্ধানে জানা গেছে, দেশের আর্ন্তজাতিক চোরাচালান সিন্ডিকেট এখন অস্ত্র ব্যবসার পরিবর্তে ইয়াবা ব্যবসার দিকে ঝুঁকে পড়েছে। এ সিন্ডিকেটের মূল হোতাদের নিয়ন্ত্রনে গড়ে উঠেছে উখিয়ার প্রায় ২০ টি সিন্ডিকেট।

চিহ্নিত ইয়াবা গডফাদারদের নিয়ে গড়া এসব সিন্ডিকেট সদস্যরা স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজের মাধ্যমে অনেকেই এখন নব্য কোটিপতি। সিন্ডিকেটের তরুন সদস্যদের অধিকাংশই আবার দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা, প্রভাবশালী ও ব্যবসায়ীদের আশির্বাদপুষ্ট হয়ে এ ব্যবসায় নেমেছে। এসব তরুনদের অনুসরণ করে প্রায় প্রতিদিনই সিন্ডিকেটের বহরে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন মুখ।

এসব চিহ্নিত সিন্ডিকেটের মধ্যে যাদের নাম পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে রয়েছেন বালুখালীর এনামুল হকের নেতৃত্ব বালুখালী সিন্ডিকেট, সাহাব উদ্দিনের নেতৃত্বে ঘুমধুম সিন্ডিকেট, ইমাম হোসেনের নেতৃত্বে জলপাইতলী সিন্ডিকেট, নুরুল আলম পুতিয়া, আবদুর রহমান ও আবদুর রহিমের নেতৃত্বে বালুখালী ঘোনারপাড়া সিন্ডিকেট, বাবুল ও ইসলামের নেতৃত্বে ঘিলাতলী সিন্ডিকেট, আতা উল্লার নেতৃত্বে উখিয়া সদর সিন্ডিকেট, বাবুলের নেতৃত্বে হিজলিয়া সিন্ডিকেট, আলী আহামদ, জাহাঙ্গীর আলম ও নুরুল আলমের নেতৃত্বে ভালুকিয়া সিন্ডিকেট, আকতারের নেতৃত্বে সিকদার বিল সিন্ডিকেট, শাহজাহান খলিফা, আবদুল্লা, হারুন, রহমান ও লালুর নেতৃত্বে ডিগিলিয়া সিন্ডিকেট অন্যতম। এর বাইরেও সোনারপাড়া, থাইংখালী, জাদিমুরা, হলদিয়া পাতাবাড়ি, কুতুপালং সহ বিভিন্ন জায়গায় এলাকা ভিক্তিক সিন্ডিকেট করে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে চিহ্নিত পাচারকারীচক্র। এদিকে উপজেলার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পসহ বহিরাগত ছোট ছোট ঝুপড়ি ঘরে কুতুপালং ক্যাম্প পুলিশের উপস্থিতিতে চলছে মাদক বেচাকেনা। এখানে মূলত বিদেশি মদ,হেরোইন ,গাজা,ইয়াবা ও ফেনসিডিল বেচাকেনা হয়। সোনারপাড়া, কোটবাজার ও হ্নীলা থেকে বিকালের পর থেকে সারারাত কুতুপালং এলাকায় কয়েকশ মোটরসাইকেলে আসে উঠতি বয়সের যুবকরা।

১১ টি স্পটে দিনে-রাতে সমানভাবে গাঁজা, হেরোইন ও ইয়াবা ও মদ বিক্রি হয় । এর আশপাশে উপস্থিত থাকে ক্যাম্প পুলিশ। জানা গেছে, এ ক্যাম্পসহ বহিরাগত বস্তির রোহিঙ্গাদের মধ্যে ৫০০০ জনের বেশি লোক মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। এ মাদক বেচাকেনার মধ্যে বেশিরভাগই নারী। মাদক অধিদফতরের কর্তা এবং কুতুপালং ক্যাম্প পুলিশ তাদের কাছ থেকে নিয়মিত টাকা পায় বলে নির্বি্েগ্নই চলে এ ব্যবসা এমটি দাবী সচেতন মহলের। মাঝেমধ্যে কারও সঙ্গে টাকা লেনদেন নিয়ে ঝামেলা হলেই শুধু তাকে আটক করা হয়। এ ব্যাপারে উখিয়া টেকনাফের সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সাথে পুলিশের সম্পর্ক থাকার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, পুলিশ সমসময় তৎপর রয়েছে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারে। কিন্ত সুনিদ্ধিষ্ট তথ্য ছাড়া ইয়াবা আটক করা কঠিন। এতে নিরপরাধ জনগনের হনরানির আশংকা। তবুও পুলিশের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

Comments Below

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ